সাম্প্রতিক পোস্ট

করোনা প্রতিরোধ কাজে ভয়েস অব ইউথ

রাজশাহী থেকে শহিদুল ইসলাম:
রাজশাহীর তরুণ সংগঠন ভয়েস অব ইউথ সংগঠনের যাত্রা শুরু ২০১৭ সালে। একদল আগ্রহী স্বেচ্ছাসেবী তরুণ শিক্ষার্থী সংগঠনটি গড়ে তুলেন। অসহায় এবং সুবিধাবঞ্চিত মানুষের উন্নয়নে সংগঠনটির তরুণরা নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। রাজশাহী শহরের সংগঠনটির সংগঠনের তরুনরা সামাজিক মূল্যবোধ থেকে সামাজিক ভালো কাজ গুলো করে থাকে। সংগঠনটি মানব কল্যাণে খাদ্য বিতরণ, বয়স্কদের সেবার ব্যবস্থা, শিশুদের নিয়ে বৈশাখী ও চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতা, মুজিববর্ষ উপলক্ষে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকে।


করোনা মাহারীর সময়ে তরুণরা শহরের প্রন্তিক মানুষের পাশে দাড়িয়েছে। সংগঠনি খাদ্য সহায়তা, মাস্ক, হ্যান্ডস্যানিটাইজার সহ করোনা প্রতিরোধে জনসচেনতার কাজ গুলো করেছেন। সাম্প্রতি রাজশাহী শহরে করোনার প্রার্দূভাব বেড়েই চলেছে। মানুষের মধ্যে সচেতনতা কমে গেছে। মানুষ এখন আর আগের মতো করোনাকে গুরুত্ব দিচ্ছেনা, যার ফলে দিনে দিনে শহরে করোনার প্রকোপ বেড়ে যাচ্ছে। এরই প্রেক্ষিতে তরুণ সংগঠন ভয়েস অব ইউথ শহরের প্রান্তিক মানুষের মধ্যে করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতামূলক “ বাঁচতে চাই” কর্মসূচী শুরু করেছে। এই কর্মসূচীর মাধ্যমে শহরের মানুষদের সামজিক দুরুত্ব, মাস্ক পরিধান এবং করোনা প্রতিরোধে সরকারি জনসচেতনতাসমূহ্র করা হচ্ছে। গত ১৯ জুলাই সংগঠনটির সদস্যরা শহরের প্রান্তিক মানুষের মধ্যে ৪৫০ মাস্ক বিতরণ করেন। একই সাথে করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতামূলক আলোচনা করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছিলেন ভয়েস অব ইউথের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি ইঞ্জি. মোঃ মাহ্ফুজুর রহমান, ইঞ্জি.রাজু আহমেদ, অ্যাড.শাহাদাত আলম বরণ, মোঃ মোমিনুল ইসলাম, মোঃ সজীব, মোঃ আপন হোসেন জয়, মোঃ আল আমিন, মোঃ আরমান, মোঃ বাধন, মোঃ শাওন, মোঃ মনি, মোঃ রিজবী আহমেদ রোমিও প্রমূখ । সংগঠনটি সম্পর্কে বারসিক বরেন্দ্র অঞ্চল সমন্বয়কারী শহিদুল ইসলাম বলেন- সংগঠনটির তরুণরা করোনাকালে রাজশাহী শহরের প্রান্তিক মানুষের পাশে সহযোগীতা করছে, একই সাথে তাঁরা করোনা জনসচেতনতা নিয়ে কাজ করছে। তরুণদের এই উদ্যোগগুলো সরকারীভাবে স্বীকৃতি ও গুরুত্ব দিলে তাদের কাজের আগ্রহ আরো বাড়বে।

happy wheels 2
%d bloggers like this: