সাম্প্রতিক পোস্ট

হরিরামপুরের চরাঞ্চলে স্বাস্থ্যসেবা পেলেন ৭ শতাধিক দরিদ্র মানুষ

:: হরিরামপুর, মানিকগঞ্জ থেকে মুকতার হোসেন::

হরিরামপুর থেকে এক ঘণ্টা পদ্মা নদী পাড়ি দিয়ে ১০ কিলোমিটার পায়ে হেটে পৌঁছতে হয় আজিমনগর ও সুতালড়ী ইউনিয়নে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও যোগাযোগ ক্ষেত্রে পিছিয়ে আছে এই ইউনিয়নের মানুষগুলে, বিশেষ করে ইউনিয়নটিতে কোন স্বাস্থ্য কেন্দ্র না থাকায় বিপাকে পড়তে হয় শিশু, নারী ও বয়স্ক মানুষদের। এলাকার মানুষ অসুস্থ হলে গ্রামের পল্লী চিকিৎসক এর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকতে হয় অথবা বড় ধরনের অসুখ হলে ফরিদপুর, হরিরামপুর, মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিতে হয়। সম্প্রতি আজিমনগর ইউনিয়নে শিশুসহ অন্যান্য মানুষের মধ্যে খুচলী পাঁচড়া, পাতলা পায়খানা, সর্দি জ্বর, গ্যাসষ্টিক, শরীর ব্যথা, হাত ও পায়ে গুটি গুটি ঘা, চোখে ছানি পড়াসহ বিভিন্ন ধরনের রোগ দেখা দেয়। কিন্তু এসব রোগের চিকিৎসার জন্য তাদের অনেকদূরের পথ পাড়ি দিতে হয়। দরিদ্রতার কারণে অনেক সেসব রোগের চিকিৎসা নিতে পারেন না! মানুষের এই দুর্ভোগ প্রশমনে সম্প্রতি  উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, হরিরামপুর ও বারসিক এবং স্থানীয় উদ্যোগে বসন্তপুর গ্রামে দিনব্যাপী স্বাস্থ্য সেবা ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিশেষভাবে সহযোগিতা করেন বিশিষ্ট সমাজ সেবক মো. জুবায়ের হোসাইন ।

মেডিকেল ক্যাম্পে  শিশু, নারী, পুরুষসহ সুতালড়ী, বসন্তপুর, শিকারপুর এনায়েতপুর, বাগডাঙ্গী, পাটগ্রামচর সহ প্রায় ১০টি গ্রামের ৭ শতাধিক মানুষের বিভিন্ন ধরনের রোগের চিকিৎসা দেওয়া হয়। মেডিকেল ক্যাম্পে এন্টিবাইটিক, এন্টিহিষ্টামিন, ভিটামিন, আয়রন, চোখের ও নাকের  ড্রপ সহ মোট ২৪ প্রকারের ওষুধ দেওয়া হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, হরিরামপুর ৩ জন চিকিৎসক ডা. সোহেল রানা, ডা. কায়েদ ইবনে আজাদ, ফার্মাসিস্ট মিজানুর রহমান ও অফিস সহকারী সাইদুর রহমান স্বাস্থ্য সেবা ক্যাম্প পরিচালনায় সহযোগিতা করেন।

স্বাস্থ্য সেবা ক্যাম্পের উদ্বোধনী সভায় প্রধান অতিথি হরিরামপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আবুল বাসার সবুজ উপস্থিত ছিলেন। চরের মানুষ যাতে সুষ্ঠুভাবে স্বাস্থ্য সেবা পেতে পারে সে জন্য নিয়মিতভাবে চিকিৎসা দেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ডাক্তার রাখার ব্যবস্থা করা হবে বলে তিনি জানান। তিনি আরও জানান, চর এলাকায় ২ মাস অন্তর অন্তর প্রত্যন্ত গ্রামগুলো স্বাস্থ্য সেবা ক্যাম্পের মাধ্যমে জনগোষ্ঠীর মধ্যে স্বাস্থ্য সেবা দেওয়ার কার্যক্রম চলমান থাকবে। অন্যদিকে বসন্তপুর গ্রামের বিশিষ্ট সমাজ সেবক মো. জুবায়ের হোসাইন ব্যক্তিগতভাবে নিয়মিত সহযোগিতা আশ্বাস ব্যক্ত করেন এবং নগদ দশ হাজার টাকার ওষুধ দিয়ে সহযোগিতা করেন।

চর অঞ্চলের সরকারি স্বাস্থ্য সেবা দেওয়ার পাশাপাশি চর অঞ্চলে স্বাস্থ্য সেবা ক্যাম্প সম্পর্কে হরিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ যাদব চন্দ্র বলেন, “চর এলাকায় স্বাস্থ্য সেবা মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার লক্ষে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে আসতে হবে।” এই স্বাস্থ্য ক্যাম্পের মাধ্যমে চরাঞ্চলের মানুষের সাথে সেবা পাওয়ার ক্ষেত্রগুলোর যোগাযোগ তৈরী হয় যা চরাঞ্চলের মানুষের স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও জীবন জীবিকার মান উন্নযনে বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে স্থানীয়রা মনে করেন।

happy wheels 2
%d bloggers like this: