সাম্প্রতিক পোস্ট

চড়ুই পাখির নিবাস একটি বকুলগাছ

সাতক্ষীরা থেকে ফজলুল হক

চারদিকে মানুষের আনাগোনা, নিচে সাইকেল ও মটর সাইকেল এর পার্কিং করা আর পুরা মার্কেটে তো আছে স্বর্ণকারের হাতুড়ির খট খট শব্দ। তবে এতো কিছুর মধ্যেও সেই মার্কেটের মধ্যেই বাসা বেঁধেছে প্রায় শতাধিক চড়–ই পাখি। মূল মার্কেটের মধ্যে থাকা মাঝারি সাইজের একটি বকুল গাছে নিজেদের এই আবাস স্থল গড়ে তুলেছে পাখিগুলো।

সাতক্ষীরা শহরের প্রাণকেন্দ্রে পাকাপুলের মোড়ে অবস্থিত পাঁচতলা বিশিষ্ট খাঁন মার্কেট। এই মার্কেটটিতে প্রায় ২৫০টি দোকান ও অফিস আছে। যার প্রায় সবগুলো স্বর্ণের গহনা প্রস্তুতের কারখানা। আরো আছে ডাক্তার খানা ও হোটেল। মার্কেটের ঠিক মাঝখানে আছে গাড়ি পার্কিং এর জায়গা থাকা একটি বকুল গাছে চড়–ই পাখির নিরাপদ আবাস স্থল।

প্রায় সাত বছর ধরে এই বকুল গাছে আবাস বেঁধেছে চড়ুই পাখি। প্রতিদিন সন্ধ্যায় একটা নিদ্দিষ্ট সময়ে পাখিগুলো মার্কেটের ভেতরের বকুল গাছে আসে। তারপর সারা রাত থেকে আবার সকালে খাদ্য সংগ্রহের উদ্দেশ্যে চলে যায়। তাদের এই আসা ও যাওয়ায় কোন বাধা থাকা এবং তাদেরকে উত্যক্ত না করা অবাদে চলাচল করে এই শতাধিক চড়–ই পাখি। আর দীর্ঘদিন তাদের নিরাপদ আবাস হিসেবে এই বকুল গাছে আসা-যাওয়া।

1

প্রতিদিন বিকালের যখন চড়–ই পাখিগুলো কিচিরমিচির করতে করতে বকুল গাছে ফিরে আসে তখন মার্কেটের লোকজন দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখে কেউবা ভিডিও করে। আবার অনেক তাদের সন্তানদের এখানে নিয়ে আসে পাখি দেখাতে। এই প্রসঙ্গে মার্কেটের মধ্যে থাকা শন্তু জুয়েলাসের স্বর্ণের কারিগর সমীর কুমার ম-ল বলেন, “এই চড়–ই পাখি প্রায় সাত বছর আগে মার্কেটের এই বকুল গাছে আসে এবং সেই থেকে বসবাস করছে।” তিনি আরো বলেন, “এই চড়–ই পাখি যখন কিচিরমিচির ডাক দিয়ে মার্কেটের বকুল গাছে ফিরে আসে তখন আমাদের ভালো লাগে।

এই চড়–ই পাখি সম্পর্কে জুয়েলাসের কর্মচারী সোহাগ বলেন, “আমরা মাঝে মাঝে পানি ও খাদ্য তাদের খাওয়ার জন্য বকুল গাছের গোঁড়ায় দিয়ে আসি। আবার একদিন পূজা উপলক্ষে বাজি ফুটালে পাখিগুলো এদিক-ওদিক ছুটাছুটি করতে থাকা তখন আমরা মার্কেটের কর্মচারীরা তাদেরকে নিষেধ করি যেন পাখিদের অসুবিধা না হয়।”

happy wheels 2
%d bloggers like this: