সাম্প্রতিক পোস্ট

হুইল চেয়ার পেয়ে এখন মনিরুল প্রতিদিন স্কুলে যেতে পারবে

সাতক্ষীরা থেকে গাজী আল ইমরান

মা, মাটি, মানুষ ও মানবতার সেবায় নিবেদিতপ্রাণ সুন্দরবন স্টুডেন্টস সলিডারিটি টিমের সদস্যগণ। সম্প্রতি (৩রা ডিসেম্বর) বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস ২০১৬ উপলক্ষে ৯৫ নং দুরমুজ খালী ভবানী সুন্দরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর ছাত্র মো. মনিরুল ইসলামের হাতে হুইল চেয়ার তুলে দেন সুন্দরবন স্টুডেন্টস সলিডারিটি টিমের সদস্যরা। এ সময় খুশিতে বাগ বাগ হয়ে যান প্রতিবন্ধী মনিরুল। মনিরুলের হাসিতে আনন্দে আত্মহারা হয়ে ওঠেন সুন্দরবন স্টুডেন্টস টিমের সদস্যরা, স্থানীয় ইউপি সদস্য, স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, শিক্ষক মন্ডলী ও স্কুলের শিক্ষার্থীরা। মনিরুলের হাসির মধ্যে তারা আনন্দ খুঁজে পান, অনুভব করেন কোন ভালো কাজ করলে অনুভুতি কেমন হয়! img_20161203_185004_636
প্রতিবন্ধী মনিরুলের পিতা রুস্তুম আলী পেশায় একজন মাইক প্রচারক এবং মা একজন দিনমজুর। দু’টি সন্তানের মধ্যে মনিরুল তাদের বড় সন্তান। কিছুটা বাকপ্রতিবন্ধী হলেও শারীরিকভাবে প্রতিবন্ধী মনিরুল ৯৫ নং দুরমুজ খালী ভবানী সুন্দরী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণীর ছাত্র। গরিব পিতা মাতার পক্ষে প্রতিদিন ছেলেকে ভ্যানে করে স্কুলে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয় না। কোন কোন দিন মনিরুলের প্রধান শিক্ষক নিজ সন্তানের মতো মনিরুলকে তাকে স্কুলে নিয়ে যেতেন। তারপর অনেক সময় মনিরুল স্কুলে অনুপস্থিত থাকতো। মনিরুল একজন মেধাবী ছাত্র এবং প্রতিদিন স্কুলে যেতে চায়। স্কুলে না যেতে সে পারলে মন খারাপ করে বসে থাকে। কারণ স্কুলে গেলে সে অনেক কিছু শিখতে পারে। এছাড়া বন্ধুদের সাথে খেলতে পারে, গল্প করতে পারে।

img_20161203_185054_029
মনিরুলের এই ইচ্ছার কথা জানে স্টুডেন্ট সলিডারিটি টিমের সদস্যরা। এছাড়া মনিরুল মা এবং বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিরুলের বিষয়টি এলাকার এই যুবকদের সাথে সহভাগিতা করে। যাতে করে যেকোনভাবেই হোক এই মেধাবী শিক্ষার্থী শিক্ষা থেকে ঝরে না পড়ে। এভাবে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল্যা আল মামুন ও প্রতিবন্ধী মনিরুলের দিনমজুর মায়ের অুনরোধের প্রেক্ষিতে সুন্দরবন স্টুডেন্টস সলিডারিটি টিমের সদস্যবৃন্দ বারসিক’র কাছে প্রতিবন্ধী মনিরুলের জন্য একটি হুইল চেয়ারের আবেদন করেন। তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি বারসিক এই চেয়ার ব্যবস্থা করে।

হুইল চেয়ার পেয়ে মনিরুলের মা বলেন, “এখন এটি মনিরুলের জীবনের সবচেয়ে বড় সম্পদ। আমি আমার ছেলেকে শিক্ষিত করতে চাই। বারসিক ও সুন্দরবন স্টুডেন্টস সলিডারিটি টিমের সদস্যদের ধন্যবাদ জানাই।” প্রধান শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি, ইউপি সদস্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন বারসিক ও সুন্দরবন স্টুডেন্টস সলিডারিটি টিমের প্রতি। প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুল্যা আল মামুন বলেন, “সুন্দরবন স্টুডেন্টস সলিডারিটি টিমের সদস্যরা কিছুদিন আগে প্রতিবন্ধী মনিরুলকে খাতা কলম ও স্কুল ড্রেস উপহার দিয়েছেন। আজ হুইল চেয়ার উপহার দিলেন। এজন্য আমি তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ এবং মানবতার সেবায় নিয়োজিত সদস্যগণকে আমি স্যালুট জানাচ্ছি।” স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ খলিলুর রহমান সুন্দরবন স্টুডেন্টস সলিডারিটি টিমের সকল ভালো কাজের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

happy wheels 2
%d bloggers like this: