সাম্প্রতিক পোস্ট

দলিত জনগোষ্ঠরি শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ

দলিত জনগোষ্ঠরি শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ

মানিকগঞ্জ থেকে রাশেদা আক্তার ও কমল চন্দ্র দত্ত
দলিত জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে দলিত জনগোষ্ঠীর শিক্ষার সুযোগ বৃদ্ধিকল্পে বারসিক এর আয়োজন ও সহযোগিতায় শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়। ২৫ এপ্রিল ২০১৮ ইং তারিখে বিকাল ৪.০০ টায় বারসিক শহর কার্যালয়ে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

dalitএ্যাডভোকেট দীপক কুমার ঘোষ এর সভাপতিত্বে আলোচনা শুরু হয়। আলোচনার শুরুতেই বারসিক এর আঞ্চলিক সমন্বয়কারী বিমল রায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন। তিনি তার আলোচনায় দলিত জনগোষ্ঠীকে নিয়ে বারসিক এর কার্যক্রম এবং শিক্ষাক্ষেত্রে তাদের পরিবর্তনের কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, “বারসিক ২০০৯ সাল হতে মানিকগঞ্জ পৌরসভার পূর্বদাশড়া, সরুন্ডি, পশ্চিম দাশড়া, নওখন্ডা, উচুটিয়া, বেউথা, বেতিলা-মিতরা ইউনিয়নের বড়িয়াল, মিতরা, অষ্টদোনা, হাটিপাড়া ইউনিয়নের পাওনান, হরিরামপুর উপজেলার গালা ইউনিয়নের কালই গ্রামে স্বাস্থ্য শিক্ষা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সহায়তায় পরিচালনার মাধ্যমে দলিত জনগোষ্ঠীর ঋষি (মনিদাস), হরিজন, রবিদাস, হেলা ও বেদে জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের শিক্ষার মান উন্নয়ন, ঝরে পরা রোধ, মা ও শিশুর স্বাস্থ্য সচেতনতা ও পুষ্টি বৃদ্ধির লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। সেই কাজের ধারাবাহিকতায় আজকের এই আয়োজন। আমরা চাই লেখাপড়া শিখে দলিত জনগোষ্ঠীর ছেলে- মেয়েরাও একদিন অনেক বড় চাকরী করুক। তাদের জীবন মান উন্নয়ন হোক।”

Boi bitoronকাশিনাথ সরকার, সহকারী প্রধান শিক্ষক, আফরোজা রমজান উচ্চ বিদ্যালয় বলেন, “বারসিক এর এই ধরণের আয়োজনের জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমিও খুব গরীব পরিবারের ছেলে ছিলাম। আমার বাবা মারা যাওয়ার পর আমার বড় ভাই নিজে লেখাপড়া না শিখে আমাদের দুই ভাইকে শিখিয়েছে। লেখাপড়ার প্রতি আগ্রহ ও ইচ্ছে ছিল তাই আজ এই অবস্থানে আসতে পেরেছি। তোমাদেরও আগ্রহ থাকতে হবে। আমরা শিক্ষকেরা অনেক বই পাই সৌজন্য সংখ্যা। যদি বারসিক আমার সাথে যোগাযোগ করে বা তোমরা যোগাযোগ করো তাহলে আগামী বছর আমি তোমাদের বই দিব কথা দিচ্ছি।”

শ্রীমতি লক্ষ্মী চ্যাটার্জ্জি, প্রধান শিক্ষক, নবগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয় বলেন, “আমার স্কুলে আনেক শিক্ষার্থী আছে যারা বেতন দেয়না, অনেকেই আছে যাদের বেতন হাফ করা। টাকার জন্য কেউ লেখা-পড়া করতে পারবেনা এটা আমি বিশ্বাস করিনা। তোমরা যারা এখানে আছ সবাই মনোযোগ দিয়ে লেখাপড়া করবে। যদি কারো সমস্যা হয় আমাদের বলবে আমরা সবাই মিলে চেষ্টা করবো কিছু করার। কিন্তু সেজন্য নিজের চেষ্টা ও ইচ্ছেশক্তি থাকতে হবে।”

30430157_1205138139616843_1665916611_nসভাপতির বক্তব্যে এ্যাডভোকেট দীপক কুমার বলেন, “বারসিক এমন একটি আয়োজন করেছে সেজন্য বারসিককে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। এমন একটি অনুষ্ঠানে থাকতে পেরে আমার নিজেরও ভাল লাগছে। তোমরা ঠিকমত লেখাপড়া করবে। আগামীতে আমরা দেখতে চাই তোমরাও বড় কোন পদে চাকরী করছো”। আলোচনা শেষে দলিত জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাঝে বই এবং পপি মনিদাসকে একটি বাইসাইকেল প্রদান করা হয়।

দলিত জনগোষ্ঠীর জীবনমানসহ শিক্ষার মান উন্নয়নে আজকের এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে এই জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীরা এগিয়ে যাবে অনেকদূর। একদিন তারা সমাজে সম্মানজনক অবস্থানে নিজের অধিকার নিয়ে অবস্থান করবে এটাই হোক আপনার আমার সবার প্রত্যাশা।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: