সাম্প্রতিক পোস্ট

সিংগাইরে প্রকৃত কৃষকের নিকট থেকে ধান সংগ্রহের উদ্যোগ

সিংগাইর, মানিকগঞ্জ থেকে শিমুল বিশ্বাস

প্রকৃত কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয়ের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে মানিকগঞ্জ জেলার সিংগাইর উপজেলা প্রশাসন। গত ১০ জুন সিংগাইর উপজেলার জয়মন্টপ ইউনিয়নে সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ অভিযান ২০১৯ এর শুভ উদ্বোধন করেন মাননীয় সাংসদ মমতাজ বেগম। এরই ধারাবাহিকতায় উপজেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবোধানে প্রতিটি ইউনিয়নে ক্রয়কেন্দ্র স্থাপনের মাধ্যমে প্রকৃত কৃষকের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ শুরু করেছেন সিংগাইর উপজেলা খাদ্য বিভাগ।

jj
গতকাল বুধবার বায়রা ইউনিয়নে প্রায় ২৫ জন কৃষকের ধানের নমুনা পরীক্ষা করেন সিংগাইর উপজেলা খাদ্য বিভাগের কর্মকতা আরিফ হোসেন। সেখানে প্রত্যেক কৃষকের ধানই আর্দ্রতার মাত্রা পরীক্ষায় পাশ হয় এবং ২৫ টন ধান বিক্রির অনুমতি প্রদান করা হয়। এ বিষয়ে আরিফ হোসেন বলেন, ‘যে সব ধান আজ কৃষক নিয়ে এসেছে তা মানসম্মত। আমি এ ধানগুলো সিংগাইরে নিয়ে আসার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।’ তিনি আরো বলেন, ‘যে ধান বিক্রয়ের জন্য সকল কৃষককে সোনালি ব্যাংকে ১০ টাকা দিয়ে একাউন্ট খুলতে হবে। তাছাড়া ধান বিক্রয়ের সময় অবশ্যই কৃষকদের কৃষি কার্ড নিয়ে আসতে হবে। আমরা প্রত্যেক ইউনিয়নে গিয়ে প্রকৃত কৃষকরে নিকট থেকে ধান সংগ্রহ করবো।’

rr
উল্লেখ্য যে, বিগত কয়েক বছর ধরে সিংগাইর উপজেলা কৃষি উন্নয়ন কমিটি স্থানীয়ভাবে প্রকৃত কৃষকের নিকট থেকে ধান ক্রয়ের দাবি জানিয়ে আসছিলেন। বিগত দিনে এ দাবি জানাতে তারা উপজেলা পর্যায়ে মানববন্ধন, স্মারকলিপি প্রদান, সংবাদ সম্মেলনসহ নানাবিদ কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন। চলতি বছর ইউনিয়ন পর্যায়ে ধান সংগ্রহের উদ্যোগে তারা সন্তোষ প্রকাশ করছেন। এ বিষয়ে সিংগাইর উপজেলা কৃষি উন্নয়ন কমিটির সভাপতি রোস্তম আলী বলেন, ‘সরকার আমাদের ব্যাথা বুঝেন, তাই আমাদের কথা শুনেছেন। আমরা সরকারকে ধন্যবাদ জানাই।’

uu
ইউনিয়ন পর্যায়ে ধান ক্রয়ের ব্যবস্থা করায় প্রান্তিক কৃষক কোন মধ্যসত্বভোগী ছাড়া সরাসরি ধান বিক্রয়ের সুযোগ পেয়েছেন। স্থানীয় বাজার মুল্য থেকে অধিক দরে ধান বিক্রির সুযোগ পেয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন গাড়াদিয়া গ্রামের রাজা মোল্লা, চায়না বেগম, আলমান, মো: বারেক, চারাভাংগা গ্রামের হোসেন আলী, মোশারফ হোসেন, আরশেদ আলী, জামালপুর গ্রামের আ: সামাদ খা, নয়াবাড়ি গ্রামের ইমান আলী, তাসলিমা বেগম, আটকুরিয়া গ্রামের রোস্তম আলী, শিবপুর গ্রামের আ: বারেক, মো: আনোয়ারুল হক মাষ্টার প্রমুখ। তারা বলেন ইউনিয়ন পর্যায়ে ধান সংগ্রহের কারনে প্রকৃত কৃষকের ধানের ন্যায্য মুল্য প্রাপ্তির অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। সেই সাথে তারা সরকারের নিকট এ উদ্যোগের ধারাবাহিকতা বজায় রাখার সুপারিশ করেন ।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: