সাম্প্রতিক পোস্ট

উন্নয়ন প্রকল্পে লোকায়ত জ্ঞানকে অবশ্যই প্রাধান্য দিতে হবে

রাজশাহী থেকে মো. শহিদুল ইসলাম
‘আমরা সবাই এলাকা ভেদে যেসকল উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করি, মানুষের জন্য, পরিবেশের জন্য উন্নয়ন প্রচেষ্টা চালাই, সেখানে অবশ্যই স্থানীয় পরিবেশ এবং স্থানীয় মানুষের জ্ঞান ও অভিজ্ঞতাকে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে হবে।’ আজ রাজশাহী জেলা প্রশাসন কার্যালয়ে সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন সমন্বয় সভায় কথাগুলো বলছিলেন রাজশাহী জেলার জেলা প্রশাসক ও জেলা মেজিস্ট্রেট আব্দুল জলিল। তিনি আরো বলেন, ‘উন্নয়ন প্রকল্পে সবাইকে ইন্ডিজিনাস নলেজকে গুরুত্ব দিয়ে উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করতে হবে। তা না হলে মানুষের আশা আকাঙ্খার এবং চাহিদার দিকগুলো বোঝা যাবেনা। শুধু টাকাই খরচ হবে। উন্নয়ন হবেনা।

রাজশাহীতে আজ (২৫ ফেব্রুয়ারি,২০২১) সকাল ১১ ঘটিকায় রাজশাহী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নিয়মিত কার্যক্রমের অংশ হিসেবে সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে উন্নয়ন সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় সভাপ্রধান হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী জেলার জেলা প্রশাসক ও জেলা মেজিস্ট্রেট আব্দুল জলিল। সভাপ্রধানে সম্মতিতে সভাটি পরিজচালনা করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শরিফুল হক। উপস্থিত ছিলেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ডেপুটি ডিরেক্টর মো. আমিরুল ইসলাম, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিপ্তরের ডেপুটি ডিরেক্টর মোহাম্মদ লুটফর রহমানসহ জেলার সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাবৃন্দ।

উন্নয়ন সমন্বয় সভায় বারসিক বরেন্দ্র অঞ্চল তথা রাজশাহী জেলায় যেসকল উন্নয়ন কার্যক্রমে জনগোষ্ঠীর সহায়ক হিসেবে ভূমিকা পালন করছে তা নিয়ে পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন তুলে ধরেন বারসিক বরেন্দ্র অঞ্চল সমন্বয়কারী ও গবেষক মো. শহিদুল ইসলাম। তিনি বারসিক’র জননেতৃত্বে উন্নয়ন এপ্রোচ তুলে ধরেন, সাথে জনগোষ্ঠীর লোকায়ত জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে কিভাবে বারসিক জনগোষ্ঠীর চাহিদা অনুযায়ী বরেন্দ্র অঞ্চলে উন্নয়ন সহযাত্রী হিসেবে ভূমিকা পালন করছে তা তুলে ধরেন। খরা প্রবণ ও পানি সংকটাপন্ন বরেন্দ্র অঞ্চলের পানি সাশ্রয়ী রবি শস্যের চাষের বৃদ্ধি, স্থানীয় বীজ সংরক্ষণ ও বীজ বিনিময়ের বৃদ্ধি, করোনাকালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী প্রতি ইঞ্চি মাটিতে শস্য ফসল ও শাকসবজি উৎপাদনে পুষ্টি বাড়ি তৈরি, বরেন্দ্র বীজ ব্যাংক এর মাধ্যমে কৃষকের মধ্যে বীজ বিনিময়, কমিউনিটি ভিত্তিক বীজ সংরক্ষণ ও বিনিময়, কম কার্বন নিঃসরণকারী ব্যয় সাশ্রয়ী মাটির উন্নত চুলার সম্প্রসারণ, পরিবেশ ও প্রতিবেশ সুরক্ষায় পরিবেশবান্ধব কৃষি, তরুণ সংগঠনগুলোর উদ্যোগ এবং করোনাকালে তরুণদের কার্যক্রম, নগরের প্রান্তিক মানুষের সমস্যা সমাধানে উন্নয়ন সহায়তা সহ বিভিন্ন কার্যক্রমগুলো তুলে ধরেন।

বারসিকের পক্ষ থেকে রাজশাহী জেলায় তাদের কার্যক্রম পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টশন শেষে রাজশাহী জেলার জেলা প্রশাসক ও জেলা মেজিস্ট্রেট আব্দুল জলিল বলেন, ‘বারসিক একেবারেই স্থানীয় পর্যায়ের সত্যিকারের সমস্যাগুলো সমাধানে এখানকার মানুষের মতো করে কাজ করছে, মানুষ এবং স্থানীয় দিকগুলো গুরুত্ব দিয়েই কাজ করছে। আমরা চাই সবাই তাদের নিজ নিজ উন্নয়ন কাজে স্থানীয় মানুষের চাহিদার দিকগুলো গুরুত্ব দিবেন।’


উল্লেখ্য যে, জেলা পর্যায়ে সরকাররি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন কাজগুলো সমন্বয়ের লক্ষ্যে প্রতিমাসে নিয়মিত জেলা প্রশাসক উন্নয়ন সমন্বয় সভার আহবান করেন। সভায় এনজিওগুলো তাঁদের কার্যক্রম ধারাবাহিকভাবে তুলে ধরেন। এরই ধারাবাহিক নিয়মে বারসিক রাজশাহী জেলায় তাঁদের জননেতৃত্বে উন্নয়ন কার্যক্রম তুলে ধরেন। বিগত কার্যক্রম গুলোসহ বর্তমান চলমান কাজগুলো তুলে ধরা হয়।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: