সাম্প্রতিক পোস্ট

নবান্ন উৎসব হচ্ছে আমাদের নিজস্বতা

রাজশাহী তহুরা খাতুন লিলি

নবান্ন উৎসব বাংলার ঐতিহ্যবাহী উৎসব। বাংলার কৃষিজীবী সমাজের শস্য উৎপাদনের বিভিন্ন পর্যায়ে যে সকল আচার-অনুষ্ঠান ও উৎসব পালিত হয় নবান্ন তার মধ্যে অন্যতম। নবান্ন শব্দের অর্থ ‘নতুন অন্ন’। নবান্ন উৎসব হলো নতুন আমন ধান কাটার পর সে ধান থেকে প্রস্তুত চালের প্রথম রান্না উপলক্ষে আয়োজিত উৎসব। সাধারণত অগ্রহায়ণ মাসে আমন ধান কাটার পরে এই উৎসব অনুষ্ঠিত হয়।

1

তেমনি প্রতিবছরই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে এগ্রোনোমি এন্ড এগ্রিকালচার এক্সটেনশন বিভাগ কৃষি অনুষদে প্রতিবছরই প্রোগ্রাম করা হয়। কৃষি বিভাগের মাস্টার্স শেষ বর্ষের ছাত্রী কামরুন্নাহার তুরিন বলেন ‘নবান্নের এই ঐতিহ্য যেন কিছুটা হলেও আমরা ধরে রাখতে পারি নবান্ন তো কৃষকদের প্রোগ্রাম যেটা জাতি ধর্ম এগুলোর মধ্যে একটা সামাজিক একাত্মতা বাড়ায়। সেটাই আমরা কিছুটা হলেও ধরে রাখার চেষ্টা করি। একঘেয়েমি জীবন ব্যবস্থা ক্লাস-পরীক্ষা এগুলোর মাঝে এই নবান্ন আমাদের কাছে একটা উৎসবের দিন মনে হয়। মনে হয় এটা আমাদেরই দিন আমাদের নিজস্বতা।’

2

সম্প্রতি এই নবান্ন উৎসবটি সকালে আনন্দ শোভাযাত্রা দিয়ে শুরু হয়। শোভাযাত্রায় তরুণ ও তরুণীরা বিভিন্ন সাজে অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠান উপলক্ষে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষক শিক্ষিকার মাঝে খেলা ধূলার আয়োজন করা হয়। দুপুরে পিঠা উৎসব উৎযাপিত হয় যেখানে নতুন চালের নানা ধরনের পিঠার আয়োজন করা হয়। এরপর সন্ধ্যায় কৃতি সংবর্ধনা পুরুষ্কার প্রদান ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপচার্য প্রফেসর ড. এম আঃ সোবহান এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রফেসর ড. আনন্দ কুমার সাহা, প্রফেসর ড. চৌধুরী মো. জাকারিয়া, প্রফেসর ড. সালেহা জেসমিন, সভাপতি ড. মোছা. ফাহামিদা চৌধুরী । প্রধান অতিথি প্রফেসর ড. এম আঃ সোবহান বলেন, ‘নবান্নের এই ঐতিহ্য রক্ষার জন্য এই ধরনের অনুষ্ঠান শিক্ষার্থীদের জন্য খূব দরকার। এতে ঐতিহ্যেও ধারা রক্ষা পায়।’

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: