সাম্প্রতিক পোস্ট

বাড়িতে বীজ সংরক্ষণ করলে বীজের গুনাগুণ জানা যায়

বিউটি সরকার, সিংগাইর, মানিকগঞ্জ
স্থানীয় জাত বৃদ্ধি ও বাজার নির্ভরশীলতা কমানোর উদ্দেশ্যে সম্প্র্রতি সিংগাইর উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের জামালপুর মধ্যপাড়া কৃষক-কৃষাণী সংগঠনের উদ্যোগে এবং বারসিক’র সহযোগিতায় স্থানীয় জাতের বীজ মেলা ও বীজ বিনিময় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত কর্মসূচিতে ছিল স্থানীয় জাতের বীজ উপস্থাপন, কৃষক-কৃষক বীজ বিনিময় ও কাগজী লেবু গাছের চারা প্রদান ইত্যাদি।


নুষ্ঠানে মো: ফরহাদ হোসেনের সভাপতিত্বে ও বারসিক কর্মসূচি কর্মকর্তা বিউটি সরকারে সঞ্চালনায় আলোচনা করেন সংগঠনের সভাপতি মোঃ ফরহাদ হোসেন। তিনি বলেন, ‘বীজ বাজার থেকে কিনতে গেলে টাকা লাগে। বাড়িতে বীজ সংরক্ষণ করলে খরচ কম হয়, বাজার নির্ভরশীলতা কমে যায়। আবার বীজের ভালোমন্দ বুঝা যায় এবং বীজ সংরক্ষণের গুরুত্ব বাড়ে।’ তিনি প্রত্যেকের বাড়িতে বীজ সংরক্ষণের পরামর্শ প্রদান করেন। তিনি জানান, বারসিক আসার পর থেকে তাদের এলাকার বাড়িতে বীজ সংরক্ষণ বেড়ে গেছে।


মেলা ও বীজ বিনিময় অনুষ্ঠানে সংগঠনের সদস্যরা তাদের বাড়িতে সংরক্ষণকৃত স্থানীয় জাতের সীম, ধুন্দল, চালকুমড়া, উস্তা, মিষ্টিকুমড়া, শশা, লাউ, সরিষা, করলা, উসতা, ধনিয়া, পুইশাক, ডাটা, সরিষা, লালশাক, পেঁপে , বরবটি , ধান ও কল্পনাথের বীজ প্রর্দশন করেন।


মেলায় ১৫ জন কৃষকের মাঝে চাহিদা অনুযায়ী স্থানীয় জাতের লাউ, সীম, মিষ্টিকুমড়া, পুইশাক, পেঁপে, বরবটি ইত্যাদি বীজ বিনিময় করা হয়। বীজ বিনিময়ের গুরুত্ব প্রসঙ্গে সংগঠনের প্রচার সম্পাদক রাজিয়া বেগম বলেন, ‘আমি বাড়ীতে বীজ সংরক্ষণ করি এবং বীজ বিনিময় করি। ফলে মানুষের সাথে সুসর্ম্পক তৈরি হয়।’ এছাড়া তিনি সবাইকে বাড়ির আঙ্গিনা পরিস্কার করে সব্জি চাষ করার পরামর্শ প্রদান করেন।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: