সাম্প্রতিক পোস্ট

কৃষকের বীজ কৃষকের অধিকার

গাজী মাহিদা মিজান, সাতক্ষীরা
‘কৃষকের বীজ, কৃষকের অধিকার’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার তুজুলপুর বীজ ব্যাংকের উদ্যোগে ৫০ জন কৃষক-কৃষাণীর মাঝে ফসলের বীজ বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল বারসিক’র পরামর্শে তুজুলপুর কৃষক ক্লাবের উদ্যোগে এ আয়োজন করা হয়।


সাতক্ষীরা সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এস এম মফিজুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও তুজুলপুর কৃষক ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রহমানের সঞ্চালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা কিরণময় সরকার, বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনিস্টিটিউটের ফার্ম ম্যানেজার অসীম কুমার বিশ^াস, ইউপি সদস্য শরিফুল ইসলাম, কৃষি ব্যাংক ও গাছের পাঠশালার প্রতিষ্ঠাতা ইয়ারব হোসেন।


অনুষ্ঠানে বীজ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ইয়ারব হোসেন বলেন, ‘কিছু প্রতারক বীজ কোম্পানি ও বীজ প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান অনুপযোগী বীজ কৃষকদের কাছে বিক্রয় করে থাকে। যার ফলে তারা আশানুরূপ ফসল লাভ করতে পারে না। এজন্যই সাতক্ষীরা সদর উপজেলার তুজুলপুর গ্রামে এই বীজ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। কৃষকেরা এই বীজ ব্যাংক থেকে বিনামূল্যে বীজ বিনিময় করতে পারবেন।’
উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা কিরনময় সরকার বলেন, ‘প্রতিনিয়ত কৃষকেরা প্রতারিত হচ্ছে বীজ ক্রয় করে। তাই কৃষকদের মাঝে এই বীজ বিতরণ অনেক উপযোগী হবে বলে আমি মনে করি। এর মাধ্যমে হাইব্রিড বীজের ব্যবহারও অনেকটা কমে যাবে বলে আমি আশা করছি।’
কৃষকেরা এই বিনামূল্যে ফসলের বীজ পেয়ে অনেক আনন্দ প্রকাশ করেন। স্থানীয় কৃষক আনিসুর রহমান বলেন, ‘বিনামূল্যে এই ধানের বীজ পেয়ে আমি খুবি আনন্দিত। এর মাধ্যমে আমি অনেক উপকৃত হতে পারব বলে আশা করছি।’


আরেকজন কৃষক আব্দুল মজিদ বলেন, ‘বীজ ব্যাংকের মাধ্যমে এই বীজ পেয়ে আমরা অনেক উপকৃত হব। এখানে এসে আমরা ফসল উৎপাদনের জন্য নানাবিধ পরামর্শ পেয়ে থাকি, যা আমাদের ফসল উৎপাদনে অনেক সহায়তা করেন।’


কৃষকেরা এই বীজ থেকে চাষাবাদ করে পরবর্তীতে প্রাপ্ত বীজ তুজুলপুর বীজ ব্যাংকে জমা দেবেন বলে অঙ্গীকারবদ্ধ হন।
উল্লেখ্য, অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন বারসিক’র গবেষণা সহকারী মাহিদা মিজান, যুব সংগঠক জাহাঙ্গীর আলম, সাংবাদিক শাহিনুর রহমান, নয়ন মন্ডলসহ আরও অনেকে। এসময় ৫০ জন কৃষকের হাতে বিভিন্ন জাতের ধানের বীজ তুলে দেওয়া হয়। কৃষকেরা এই বীজ দিয়ে ৫০ বিঘা জমিতে ধান চাষ করতে পারবেন বলে জানান।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: