সাম্প্রতিক পোস্ট

আমাদের গ্রাম, শতভাগ পরিবেশ বান্ধব চুলা গ্রাম

রাজশাহী থেকে আয়েশা তাবাসুম,অমৃত সরকার ও শহিদুল ইসলাম
বিশ্ব পরিবেশ দিবস -২০২২। ‘একটাই পৃথিবী আসুন বাঁচি প্রকৃতির ছন্দে’। এই প্রতিপাদ্য বিষয়ে রাজশাহীর তানোর উপজেলার গুবিরপাড়া গ্রামে অনুষ্ঠিত হলো শতভাগ চুলা গ্রাম ঘোষণা অনুষ্ঠান। কার্বন নিঃসরণ কমাতে অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ এই গ্রামটিকে শতভাগ চুলা ব্যবহারকারী গ্রাম হিসেবে ঘোষণা করলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার পংকজ চন্দ্র দেবনাথ।


বারসিক ২০১৬ সাল থেকে এই গ্রামে জনগোষ্ঠিকে নিজের উন্নয়নে সহায়তা প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় আজ গ্রামটি শতভাগ পরিবেশবান্ধব চুলা গ্রাম হিসেবে স্বীকৃতি পেল। এ বিষয়ে গুবিরপাড়া গ্রামের মোছাঃ গুরফন নেসা বলেন, ‘আমাদের গ্রামে মোট ৪৩০টি পরিবারের বসবাস। আমরা সবাই পরিবেশবান্ধব চুলা ব্যবহার করি। আমাদের এই ছোট কাজটি পরিবেশ রক্ষায় কত বড় ভূমিকা রাখছে তা আজ বুঝতে পেরেছি।’


উপজেলা নির্বাহী অফিসার বলেন, ‘একটি গ্রাম শতভাগ পরিবেশবান্ধব চুলা ব্যবহারকারী গ্রাম। নিঃসন্দেহে এটা তানোরের জন্য অনেক বড় একটি উদাহরণ। পাশাপাশি এই কাজটি কার্বন নিঃসরন কমাতেও ভূমিকা রাখছে। আমি সাধুবাদ জানাই এর সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ। আশা করি এই গ্রামের মত আরো গ্রামের এই কাজের সম্প্রসারণ হবে।’ বারসিক’র আঞ্চলিক সমন্বয়কারী মোঃ শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘জনগোষ্ঠির পরিবেশ সংরক্ষণের এমন উদ্যোগে সহযোগিতা বারসিক সব সময় দিয়ে এসেছে, আমরা সব সময় চাই জনগোষ্ঠি পরিবেশ সংরক্ষণে উদ্যোগী হয়ে সবুজ পৃথিবী গড়তে ভূমিকা রাখবে।’


এই কাজের সাথে প্রথম থেকেই প্রত্যক্ষভাবে সহযোগিতা করেছেন তানোর উপজেলার হরিদেবপুর গ্রামের নিজ জ্ঞানে পরিবেশবান্ধব চুলা উদ্ভাবনকারী মোছাঃ কবুলজান বেগম। তিনি বলেন, আমার স্বপ্ন যে একদিন তানোর উপজেলার প্রতিটি গ্রামই পরিবেশবান্ধব চুলা ব্যবহারকারী গ্রাম হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাবে। সেই লক্ষ্যেই পরিবেশবান্ধব চুলা তৈরি করে দিতে আমার ছুটে চলা।’


উক্ত অনুষ্ঠানে গুবিরপাড়া গ্রামের ১২০জন নারী পুরুষ অংশগ্রহণ করে তাঁদের কাজের মাধ্যমেও যে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় ভূমিকা আছে তা বুঝতে পেরেছেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বারসিকের কর্মসূচি কর্মকর্তা অমৃত সরকার।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: