সাম্প্রতিক পোস্ট

দর্জিপাড়া তৈরির আর্জি জানালেন নারীরা

সাতক্ষীরার শ্যামনগর থেকে বিশ্বজিৎ মন্ডল

শ্যামনগর উপজেলার কাশিমাড়ি ইউনিয়নের জয়নগর গ্রামে ১৫ জন নারী উদ্যোগী হয়ে ২০১৭ সালে একটি নারী সংগঠন তৈরি করেন। সংগঠনের নাম রাখেন জয়নগর কৃষি নারী সংগঠন। সংগঠন তৈরির পর থেকে বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রম পরিচালনা করছেন তারা। কখনো আলোচনায় নবীন ও প্রবীণদের বন্ধত্ব তৈরিতে গল্পের আসর কখনওবা গ্রাম ও সংগঠন পর্যায়ে প্রবীণ ওপ্রতিবন্ধীদের সামাজিকীরণ বিষয়ে আলোচনা, এলাকার কৃষি পরিবেশ সংরক্ষণ, প্রাণী সম্পদের পরিচর্যা, অচাষকৃত উদ্ভিদ বৈচিত্র্য সংরক্ষণে পাড়া মেলা রান্না প্রতিযোগিতাসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ তৈরি বিষয়ক কর্মসূচি আয়োজন করেন।

pic-20
বিগত কয়েক মাস ধরে নারীরা তাদের আয় বর্ধন কাজকে সমৃদ্ধি ও সম্প্রসারণের জন্য দর্জি কাজ শেখার আগ্রহ প্রকাশ করেন। দর্জি কাজ শিখতে প্রশিক্ষণ ও একটি সেলাই মেশিন সহায়তার জন্য বারসিকের নিকট সহায়তা দাবি জানান। তারা বাইরে থেকে কোন প্রশিক্ষক না নিয়ে যাতে নিজেদের মধ্যে ভালো কাজ জানেন তাকে প্রশিক্ষক হিসাবে নিয়োগ দেওয়ার দাবি জানান। তাদের যুক্তি হলো বাইরের প্রশিক্ষক হলে তো সবসময় তার কাছে যেতে পারবেন না। এজন্য নিজেদের মধ্যে থেকে প্রশিক্ষক নির্বাচন করলে ভালো হয়।

তাদের দাবির প্রেক্ষিতেই গতকাল জয়নগর কৃষি নারী সংগঠনের উদ্যোগে ও বারসিকের সহায়তায় দর্জি বিজ্ঞান প্রশিক্ষণ কর্মশালার সভার শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বারসিক কর্মকর্তা বিশ^জিৎ মন্ডলের সঞ্চালনায় ইউপি সদস্য মো. রাজগুল ইসলামের সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তব্য রাখেন ইউপি সদস্য রাজগুল ইসলাম, জয়নগর কৃষি নারী সংগঠনের সভানেত্রী অর্চনা রানী মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক রোজিনা বেগম, সিডিও ইয়থ টিমের কাশিমাড়ি ইউনিট প্রধান হুমায়ন কবীর বারসিক কর্মকর্তা আল ইমরান, মারুফ হোসেন মিলন ও চম্পা রানী মল্লিখ সহ প্রমুখ।

pic-21
আলোচনায় বক্তারা বলেন, ‘এটি নারীদের একটি ভালো উদ্যোগ। তারা যে পরিবারের আয়ের কথা ভাবছে এটি খুব ভালো। আমাদের সকল নারীরা যদি এরকম ভূমিকা রাখে তাহলে তো আমাদের দেশ অনেক এগিয়ে যাবে। আমরা নারীরা যদি এ দর্জি কাজের পাশাপাশি অন্যান্য কাজও করতে পারি তার জন্য পরিকল্পনা তৈরি করে কাজ করতে হবে।’ বক্তরা আরো বলেন, ‘নারীদের এরকম উদ্যোগ বাস্তবাযনের জন্য বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসহ ইউপি সদস্য বিভিন্নভাবে সহায়তা করতে পারে। সে সহায়তা হতে পারে কোন পরামশর্, কোন উপকরণ যে কোন কিছু এবং সব কাজ ইউনিয়ন পরিসদকে সাথে নিয়ে করা করতে হবে।’

প্রশিক্ষণার্থীরা বলেন, ‘আমরা এখানে অনেক নারী এ দর্জি কাজ শিখতে আগ্রহী। আমরা তো অনেকেই কাজ না শিখে মেশিন ক্রয় করেছি। আমরা এ কাজের পাশাপশি আরিজুরির কাজও শিখছি। আমরা চাই আমাদের এ পাড়াটাকে একটি দর্জি পাড়া তৈরি করতে। আমরা নারীর এ কাজ করে সাবলম্বী হতে চাই। তার জন্য সকলের সহায়তা চাই।’

অনুষ্ঠান শেষে সভাপতি ইউপি সদস্য বারসিক’র মতো নারী সংগঠনে একটি সেলাই মেশিন দেওয়ার আশ^াস দেন।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: