সাম্প্রতিক পোস্ট

পটল চাষে লাভবান চরের কৃষক আফছার আলী

হরিরামপুর থেকে মুকতার হোসেন

হরিরামপুর উপজেলার লেছড়াগঞ্জ ইউনিয়নে হরিহরদিয়া চরে বাড়ি কৃষক আফছার আলী। ২০১৭ সালে পাশে ফরিদপুর জেলার কানাইহাট গ্রামে আত্মীয় বাড়ি বেড়াতে গিয়ে চোখে পড়ে মাচা পদ্ধতিতে পটল চাষ। কানাইহাট গ্রামের কৃষক আকবার আলী সাথে আফছার আলী দীর্ঘ ধরে সময় ধরে মাচা পদ্ধতিতে পটল চাষ পদ্ধতি,পরিচর্যা ও অন্যান্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ক তথ্য আদান এবং অভিজ্ঞতা সহভাগিতা হয়। আবহাওয়া পরিবেশ, মাটির অবস্থান সব কিছু বিবেচনা করে মনের ভিতরে স্বপ্ন বাঁধে পটল চাষ করে লাভবান হওয়ার।

IMG_20181206_102315
ফরিদপুর থেকে কিছু পটলের পট সংগ্রহ করে নিয়ে এসে প্রথমে ৫ শতক বাড়ির আঙ্গিনায় মাচা পদ্ধতিতে পটল চাষ করে লাভবান হন। তার পরের বছর ২০১৮ সালে আফছার আলী বাড়ির পাশে ভিটিতে ১৫ শতক জায়গায় মাচায় পটল চাষ করে খরচ বাদে পঞ্চাশ হাজার টাকা লাভ করেন। পটল চাষের এই সাফল্য দেখে চলতি বছরে আরো ৬৬ শতক জমিতে পটল চাষ করেছেন। রাস্তার পাশে বাড়ি, সামনে পটলের মাচায় ঝুলন্ত পটল দেখে পথচারীরা কৃষক আফছার আলীর কাছ থেকে কাছ থেকে পটল চাষের বিষয়ে পরামর্শ নিয়ে থাকেন। গ্রামের মানুষ এখন আফছার পরিচয় জানতে গেলে বলেন পটল বাড়ি আফছার আলী নামে এলাকায় পরিচয় লাভ করেছেন।

কৃষক আফছার আলীর কাছ থেকে হরিহরদিয়া, গঙ্গাধরদি, নটাখোলা, বালিয়াচর গ্রামের ১১ জন কৃষক তার থেকে পটল এর পট নিয়ে তারাা এখন পটল চাষ করেছেন। কৃষক আফছার আলী বলেন, ‘আমার পটল চাষে কোন প্রকার রাসায়নিক সার, বিষ ব্যবহার করি না। তাই আমার পটল বাজারে নিলে তাড়াতাড়ি বিক্রি হয়ে যায়। পটল বিক্রি করতে আমার কোন বেগ পেতে হয় হয় না। খুুচরা ও পাইকারী ক্রেতারা ভিড় জমায় আমার পটল কেনার জন্য।’ গঙ্গাধরদি গ্রামের কৃষক নান্নু প্রামাণিক বলেন, ‘আফছার আলীর রাসায়নিক সার ও কীটনাশক প্রয়োগ না করে শুধু জৈবসার সার ও জৈব বালাই নাশক ব্যবহার করে পটল চাষে সাফল্য অর্জন করেছেন।’

IMG_20181206_124004
বারসিক এলাকার কৃষকদের নিরাপদ খাদ্য উৎপাদনে রাসায়নিক সার ও বালাইনাশক ব্যবহার মাধ্যমে ফসল উৎপাদনে এলাকার কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করে আসছে। বারসিক হরিরামপুর রিসোর্স সেন্টারের কর্মকর্তা মুকতার হোসেন জানান, নিরাপদ খাদ্য উৎপাদনে কৃষক পর্যায়ে আলোচনা সভা, অভিজ্ঞতা বিনিময় সফর, তথ্য আদান প্রদান, প্রশিক্ষণ দিয়ে এলাকার কৃষকদের সহযোগিতা করে আসছে। ফলে একদিকে উৎপাদন খরচ কম হচ্ছে এবং নিরাপদ খাদ্য গ্রহণে উদ্বুদ্ধ হচ্ছে।

IMG_20181206_124141 (1)
মানিকগঞ্জ সিংগাইর উপজেলা থেকে হরিরামপুর চরে পটল চাষে অভিজ্ঞতা বিনিময় সফরে আসা কৃষক আব্দুল মজিদ, মনির হোসেন, তারিকুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম আফছার আলী নিকট থেকে পটল চাষে বিষয়ে জ্ঞার্নাজন করেন এবং তাদের এলাকায় মাচা পদ্ধতিতে পটল চাষের পটলের পট বিনিময় করেন।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, আফছার আলীর বাড়িতে আনাচে কানাছে পটল, করল্লা, বেগুন, পুইশাক, ঢেড়শ, লাউ, চালকুমড়া সব ধরনের মৌসুমভিত্তিক সবজি রয়েছে। বলতে গেলে তার বাড়িটা একটা কৃষি সমৃদ্ধি বাড়ি হিসেবে পরিচিত ।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: