সাম্প্রতিক পোস্ট

নিরাপদ খাদ্য উৎপাদনে ব্যস্ত চরের কৃষকগণ

হরিরামপুর থেকে মুকতার হোসেন
ভেজাল আর রাসায়নিক সার, বিষ, কীটনাশক দিয়ে যখন অধিক লাভ আর মুনাফার আশায় ফসল উৎপাদনে কৃষকরা ব্যস্ত হয়ে পড়েন ঠিক সময় হরিরামপুর চরাঞ্চলের কৃষকরা নিরাপদ খাদ্য উৎপাদনে ভূমিকা রাখছেন।


সেলিমপুর গ্রামের কৃষক রশিদ শেখ বলেন, ‘চরে প্রতিবছর বন্যা হয়। বন্যার কারণে চরের ফসলী জমিতে পলি পড়ে মাটি উর্বরাশক্তি বৃদ্ধি পায়। রাসায়নিক সার, বিষ আমরা কম ব্যবহার করি। ফলে আমাদের উৎপাদনে ফলন একটু কম হয়। কিন্তু খাদ্যকে আমরা বিষমুক্ত রাখি। বিষমুক্ত খাবারের বাজারে কদর বেশি। তাই চরের কৃষকদের উৎপাদিত খাদ্যমূল্য বেশি দিতে হবে।’
চলতি রবি মৌসুমে হরিরামপুর চরে মাসকালাই, খেসারি কালাই, মসুরি, সরিষা, গম পায়রা গোবর সার, কম্পোষ্ট সার ব্যবহার করে নিরাপদ খাদ্য উপাদনে চরের কিছু কৃষকরা ভূমিকা রাখছেন। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে যথাযথ খাদ্য নিরাপত্তা ও নিরাপদ খাদ্য আইনি ব্যবহার জানা ও ভোক্তা ক্রেতা পর্যায়ে অবহিত করা প্রয়োজন বলে মনে করেন কৃষকরা। উৎপাদন থেকে বিপনন পর্যন্ত সকল পর্যায়ে সঠিক পদ্ধতি কৌশল অবলম্বন করলে কৃষকরা লাভবান হবেন। এছাড়া নিরাপদ খাদ্য গ্রহণে মানুষকে তার অভ্যাস পরিবর্তনে সচেতন করা উচিত এবং স্বাস্থ্য ঝুঁকিপূর্ণ খাবারকে বর্জন করতে হবে।


হরিরামপুর চরাঞ্চলে স্থানীয়ভাবে গড়ে উঠা কয়েকটি কৃষক সংগঠন, নারী সংগঠন, যুব সংগঠনের উদ্যোগে স্থায়িত্বশীল উপায়ে চাষাবাদ উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। তারা চাষাবাদে বীজ বৈচিত্র্য বিনিময় ও সংরক্ষণে উদ্যোগ গ্রহণ করেন। জনসংগঠনের সদস্যরা সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে বিষমুক্ত খাবার উৎপাদন করছেন। নিরাপদ খাদ্য উৎপাদনে বারসিক ও উপজেলা কৃষি অফিসের সমন্বয়ে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে আবাদ করছেন। বারসিকসহ কৃষি অফিসের পরামর্শে কৃষকরা পলি মাটিতে দেশীয় জাতের ফসল চাষ, বীজ সংরক্ষণসহ বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। এছাড়া তারা গরু ছাগল, ভেড়া, হাঁস, মুরগি পালনসহ প্রাণবৈচিত্র্য সংরক্ষণে উদ্যোগি হয়েছে, যা নিরাপদ খাদ্য উৎপাদনকে গতিশীল করছে।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: