সাম্প্রতিক পোস্ট

ফাতেমা বেগমের বিষমুক্ত শাকসবজি চাষ

রাজশাহী থেকে সুলতানা খাতুন

বিলধর্মপুর নারী সংগঠন এর সদস্য ফাতেমা বেগম। তাঁর পরিবারের সদস্য সংখ্যা দুইজন। তাঁর স্বামী একজন কৃষক। বাড়ির চারপাশে তিনি বিভিন্ন রকম ফলমূল ও শাকসবজি চাষাবাদ করেন। সংসারের কাজের পাশাপাশি হাঁস, মুরগি, গরু, ছাগল লালন পালন করেন। সবজি চাষের পাশাপাশি তিনি দেশি জাতের ওল ও গড়া আলু চাষ করেন।

তিনি নিজে যে সবজিগুলো চাষাবাদ করেন সে সকল সবজি বীজ সংরক্ষণ করে রাখেন পরবর্তী সময়ে চাষাবাদের জন্য। এছাড়া তিনি গ্রামের অন্য নারীদের সাথে বীজ বিনিময় করেন। ফাতেমা বেগম বিগত চার বছর ধরে বাড়ির আশেপাশে বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ করে আসছেন।

সংগঠনের সদস্যদের চাহিদা অনুযায়ী বারসিক’র সহযোগিতায় ঐ গ্রামে বিষমুক্ত খাবার উৎপাদনের জন্য জৈব ও বালাইনাশক প্রশিক্ষণ কর্মশালা করা হয়। এসব প্রশিক্ষণে তিনি অংশগ্রহণ করে বিষমুক্ত চাষবাসের বিষয়ে জ্ঞান আহরণ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় ফাতেমা বেগম জৈব পদ্ধতিতে শাকসবজি চাষাবাদ শুরু করেন। বারসিক কর্মী তাঁকে বীজ বিনিময় ও শাকসবজি চাষাবাদে বিভিন্ন ধরনের পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

এ মৌসুমে তিনি বরই বিক্রি করেছেন ২ হাজার চারশত টাকা, ঔল ও গড়া আলু ৮শত টাকা, শাকসবজি দেড় হাজার টাকা। তিনি বিক্রি করার পাশাপাশি দশজন পাড়া প্রতিবেশীর সাথে বিভিন্ন ধরনের শাকসবজি বিনিময় করেছেন। তাঁর বিষমুক্ত সবজি চাষ দেখে গ্রামের অনেক নারী উৎসাহিত হয়ে নিজের বসতভিটায় সবজি আবাদ করে এবং কয়েকজন নারী ইতিমধ্যেই ছোট পরিসরে সবজি চাষ শুরু করেছেন।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: