সাম্প্রতিক পোস্ট

সেলাই প্রশিক্ষণে অংশ নিয়ে আমরা অনেকভাবে লাভবান হতে পারি

ডেস্ক রিপোর্ট

সাতক্ষীরায় করোনাকালীন সময়ে শহরের নি¤œ আয়ের পরিবারের কিশোরীদের আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টিতে চলমান মাসব্যাপী সেলাই প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপ্তি ঘোষইা করা হয়েছে। গতকাল সাতক্ষীরা পৌরসভার রাজারবাগান ঋষিপাড়ায় আশার আলো কিশোরী সংগঠনের আয়োজনে এবং বারসিক’র সহযোগীতায় মাসব্যাপী চলমান এই সেলাই প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। মাসব্যাপী চলমান এই সেলাই প্রশিক্ষণ কর্মশালায় কিশোরীদের মাঝে প্রশিক্ষক হিসেবে ছিলেন পূর্ণিমা দাসী।


সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বারসিক’র গবেষণা সহকারী গাজী মাহিদা মিজান এবং যুব সংগঠক জাহাঙ্গীর আলম। মাসব্যাপী চলমান এই সেলাই প্রশিক্ষণ কর্মশালার মাধ্যমে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন আশার আলো কিশোরী সংগঠনের ১৫ জন কিশোরী।


এ সময় বারসিক’র গবেষণা সহকারী গাজী মাহিদা মিজান বলেন, ‘মাসব্যাপী চলমান এই সেলাই প্রশিক্ষণ কর্মশালার মাধ্যমে কিশোরীদের অন্যের উপর নির্ভশীলতা কিছুটা হলেও কমবে। এছাড়া এই ১৫ জন কিশোরীদের মধ্য থেকে হয়তো ভবিষৎতে কয়েকজন নারী উদ্যোক্তাও সৃষ্টি হতে পারে, যা পরবর্তীতে নারীদের জীবনমান উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারবে বলে আমি আশা করি।’


বারসিকের যুব সংগঠক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘আমি মনে করি পড়ালেখার পাশাপাশি এ ধরনের বিভিন্ন প্রশিক্ষণ গ্রহণ করলে আমাদের কর্মদক্ষতা আরও বৃদ্ধি পাবে।’


আশার আলো কিশোরী সংগঠনের সভাপতি শিখা দাস বলেন, ‘এই সেলাই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আমরা অনেক ভাবে লাভবান হতে পারব বলে আমি আশা করছি। পাশাপাশি আমাদের এলাকার কিশোরীদের ঝরে পড়াও হয়ত কিছুটা হলেও রোধ করা যেতে পারবে।’


আশার আলো কিশোরী সংগঠনের সদস্য মনিকা দাশ বলেন, ‘আমাদেরকে নিয়ে কেউ চিন্তা করে না। নিজেদের পরিবারের কাছেও আমরা বোঝার মত। বারসিককে অনেক ধন্যবাদ আমাদের জন্য এরকম প্রশিক্ষণ কর্মশালার আয়োজন করার জন্য। এ ধরনের প্রশিক্ষণ পরবর্তীতে আমাদের জন্য অনেক ফলপ্রসূ হবে বলে আমি আশা করছি।’

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: