সাম্প্রতিক পোস্ট

কন্যা শিশুর অগ্রযাত্রা, দেশের জন্য নতুন মাত্রা

বরেন্দ্র প্রতিনিধি

‘একটি মাত্র ঝুপড়ি ঘর, সেখানেই মা, বাবা, ভাই ও বোন গাদাগাদি করে থাকি, একটু যখন বড় হচ্ছি বুঝতে পাচ্ছি নিজের নিরাপত্তাও কতো নাজুক অবস্থায়। রাস্তার পাশে থাকি। বর্ষায় ঘরে পানি উঠে, শীতে ঠান্ডা বাতাস, সব মিলে আমরা অনেক কষ্টে আছি। কেউ দেখে না আমাদের দিকে।’ কথাগুলো বলছিলেন রাজশাহীর নগরীর নামোভদ্রা বস্তির কিশোরী চাঁদনী। এই নগরীর নাগরিক হয়েও যারা নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত, সেরকম একটি পরিবারেই বসবাস করেন চাঁদনি। এরকম শত শত চাঁদনীদের বসবাস আছে এই নগরীতে। পরিবারের আর্থিক অনটনের কারণে এই শিশুরা কম বয়সেই ঝুঁকিপূর্ণ পেশার সাথে যুক্ত হয়। আবার কম বয়সেই বিয়ে হয়ে যায়। অবশেষে লেখাপড়া থেকে তারা ঝরে পড়ে। স্কুলের শুরুটা হলেও শেষ হয়ে উঠে না। বস্তির নানা সমস্যার মধ্যে নারী শিশুর শিক্ষার সমস্যা একটি বড় সমস্যা হিসেবে দেখা গেছে।

BARCIK Rajshahi

বস্তির কন্যা শিশুদের সমস্যা সম্ভাবনা দিকগুলো সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলে তুলে ধরার জন্য গত ১১ অক্টোবর রাজশাহী নগরীর নামোভদ্রা বস্তিতে আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস পালিত হয়েছে। বারসিক ও নামোভদ্রা বাস্তুহারা সার্বিক উন্নয়ন সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে উক্ত অনুষ্ঠানে নগরীর বস্তিবাসী সুবিধাবঞ্চিত কন্যা শিশুর জন্য প্রাথমিক শিক্ষা, নিরাপত্তাসহ শিশুর জন্য আলাদা বরাদ্দের দাবিতে মানববন্ধন ও আলোচনা হয়। মানববন্ধনে নামোভদ্রা বস্তির শতাধিক নারী শিশুসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষ অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধনে সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা বসবাসের স্থায়ী সমাধান, লেখাপড়া করার জন্য আর্থিক সুবিধাসহ নিরাপত্তার অধিকারের দাবি জানান। তারা বলেন, ‘বস্তিতে থাকার জায়গা ভালো না হওয়ার কারণে লেখাপড়া ঠিকভাবে করতে পারেনা, বর্ষার সময় স্যাত স্যাতে ঘরে বিভন্ন রোগবালাই ধরে। বাবা মায়ের আর্থিক অবস্থা ভালো না হওয়ার কারণে শিশুরা বাধ্য হয়ে অর্থাভাবে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে জড়িত হয়ে পড়েন। বস্তির শিশুদের জন্য পর্যাপ্ত আলাদা বরাদ্দের দাবি জানান সরকারের কাছে।

একই সাথে শিশুরা তাদের বাবা ও মায়ের জন্য কর্মসংস্থানের সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন সবার কাছে। মানববন্ধনে শিশুদের অধিকার নিয়ে কথা বলে বস্তির নারী শিশু চাঁদনী, কাকলি এবং কাজলী ।

BARCIK-Rajsh

অনুষ্ঠানের আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস এবং বস্তির কন্যা শিশুদের সমস্যা বিষয়ে বক্তব্য দেন বারসিক আঞ্চলিক সমন্বয়কারী শহিদুল ইসলাম। উপস্থিত ছিলেন নামোভদ্রা বাস্তহারা সার্বিক উন্নয়ন সংগঠনের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. লিটন মিয়াসহ সংগঠনের অন্যান্য সদস্যগণ।

উল্লেখ্য যে, বিশ্বজুড়ে জাতিসংঘ রাষ্ট্রসমূহে ২০১২ সালের ১১ অক্টোবর দিনটাকে আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। প্রতিবছরের ন্যায় এবারো সারা বিশ্বে আন্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস পালিত হচ্ছে। জাতিসংঘ ঘোষিত এবারে এই দিবসের প্রতিপাদ্য ধরা হয়েছে ‘কন্যা শিশুর অগ্রযাত্রা, দেশের জন্য নতুন মাত্রা’।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: