সাম্প্রতিক পোস্ট

জিয়ারুল ইসলামের পুষ্টি চাহিদা পূরণের কৌশল

রাজশাহী থেকে তহুরা খাতুন লিলি
রাজশাহীর রেললাইনের ধারে, শহরের প্রান্তে কিছু বস্তি দেখা যায়, তার মধ্যে নামোভদ্রা একটি। যেখানে নীলফামারী, শরীয়তপুর থেকে আসা অনেক মানুষের বসবাস। তাদের প্রধান জীবিকা ভাংড়ি কুড়ানো।
নামোভদ্রার এক বাসিন্দা মো. জিয়ারুল ইসলাম। নীলফামারির নদী ভাঙনে রাজশাহী এসে স্থায়ী বসবাস শুরু করেন ২০ বছর আগে। তিনি ভাঙড়ি কুড়িয়ে আয় করেন। পাশাপাশি রেলের ধারে খুব সকালে পরোটা বিক্রি করেন। ৩ ছেলে ও ১ মেয়ের সংসার তার। তার স্ত্রী বাসা বাড়িতে কাজ করেন।


মো: জিয়ারুল ইসলাম তার বাসা বাড়ির পেছনের খুব সামান্য জায়গায় কিছু সবজি লাগিয়ে সেগুলো দেখাশোনা করেন। তিনি সবজি বা ফল থেকে বীজ সংগ্রহ করেন। গত বছর বারসিক তাকে লাউ, শিমের বীজ দিয়েছিলো। সেই লাউ বীজ রোপণ করে সেখান থেকে ২৭টা লাউ ধরেছিলো। এই লাউগুলো তাঁর পরিবার নিজেরা খেয়েছেন, কিছু প্রতিবেশীর সাথে বিনিময় করেছেন আর কয়েকটা বিক্রিও করেছেন। ৩টা লাউ রেখে দিয়েছেন ঘরে বীজ সংরক্ষণের জন্য। তিনি বলেন, ‘আমার ছোট্ট এই জায়গায় যা পারি লাগাই, বারসিক’র দেওয়া বীজ থেকে ফল পেয়েছি ,এবারও লাউ এর বীজ সংরক্ষণ করেছি লাগাবো বলে।’


তার বসত ভিটায় বর্তমানে সজিনা, লেবু, কচুর গাছ রয়েছে। তার সাথে বেগুন,মরিচ, করলার বীজ বিনিময় করা হয় । উৎসাহ আর ইচ্ছায় পারে সামান্য জায়গা ব্যবহার করে নিজের পুষ্টি চাহিদা পূরণ করতে।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: