সাম্প্রতিক পোস্ট

সবুজ বাড়িটি সবার দৃষ্টি কাড়ছে

চাটমোহর, পাবনা থেকে ইকবাল কবীর রনজু

পাবনার চাটমোহরের বাসষ্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থিত একটি সবুজ বাড়ি সবার দৃষ্টি কাড়ছে। অন্যান্য বাড়ির চেয়ে স্বতন্ত্র বলে পথচারীরা এ পথে যাবার সময় ইচ্ছায় হোক আর অনিচ্ছায় হোক একবার তাকিয়ে দেখেন বাড়িটি। অনেকে কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে দেখে নেন অপলক। সাদামাটা হলেও বাড়িটিকে দৃষ্টিননন্দন করেছে গাছ গাছালী। চারতলার ছাদের টবে টবে বাহারী ফল ফুল ও শোভা বর্ধনকারী গাছ। আর উত্তর ও পশ্চিম পাশের প্রায় পুরোটা দেয়াল জুড়ে থাকা শোভা বর্ধনকারী লতা জাতীয় গাছগুলো পরম মমতায় আটকে রেখেছে ইট সিমেন্ট বালির দেয়ালটি।

sobuj bari-1
সম্প্রতি কথা হয় এ বাড়ির মালিক পাবনা-৩ এলাকার সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাড. শামসুদ্দিন খবিরের সাথে। তিনি জাতীয় পার্টির সময় পাবনা-৩ এলাকার সংসদ সদস্য ছিলেন। আওয়ামীলীগ থেকে উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। দীর্ঘদিন কাজ করেছেন মানুষের সাথে। পাবনা-৩ এলাকার উন্নয়নে কাজ করেছেন। এখন পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। সীমিত পরিসরে রাজনৈতিক কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত আছেন। সুপ্রীম কোর্টে প্রাকটিস করছেন দীর্ঘদিন যাবত।

sobuj bari-3
সাবেক সংসদ সদস্য সৌন্দর্যপ্রিয় এ্যাড. শামসুদ্দিন খবির বলেন, “গাছ গাছালীর সৈন্দর্য মুগ্ধ করে আমায়। তাই অবসর সময়টুকু গাছ গাছালীর পরিচর্যা করি। বছর তিনেক আগে ঢাকার কাকরাইলের খ্রিষ্টান মিশনারীর দেয়ালে শোভাবর্ধণকারী গাছগুলোর সৌন্দর্য দেখে মুগ্ধ হই। সেখান থেকে এ গাছগুলো এনে দেয়ালের পাশে লাগিয়ে দিই। তর তর করে বাড়তে থাকে গাছগুলো।’ তিনি আরও বলেন, ‘সেদিনের লাগানো এতটুকু গাছ আজ প্রায় চার তলার ছাদ ছুঁইছে। মানুষ রাস্তা দিয়ে যাবার সময় তাকিয়ে দেখে। হয়তো গাছগুলোর সৌন্দর্য আমার মতই তাদেরকেও মুগ্ধ করে। ঢাকায় বসবাস করি। প্রায়ই বাড়িতে আসি। বাড়িতে আসলেই গাছ গাছালীর যত্ন নেই। আমার অবর্তমানে আমার স্ত্রী এ্যাড.ইতি হোসেন স্বপ্না ও আমার এক মামা, ধুলাউড়ি গ্রামের তয়জাল সরদার পরম মমতায় গাছ গাছালীগুলোর পরিচর্যা করি।’

sobuj bari-2
ছাদ বাগানে গাছের পরিচর্যা করার সময় তিনি বলেন, ‘এই ছাদে ফলের মধ্যে বারোমাসী আম, বেদানা, মিষ্টি তেতুল, পেয়ারা, লেবু, জাম্বুরা, কামরাঙা, আমড়া, আমলকী, করমচা, ফুলের মধ্যে হাসনা হেনা, বিভিন্ন রঙ ও প্রজাতির গোলাপ, রঙ্গন, এ্যালামন্ডা, নয়নতারা, গন্ধরাজ, রজনীগন্ধা, জুঁইফুল ছাড়াও ক্যাকটাস, খ্রিষ্টমাস ট্রি, অষ্ট্রেলিয়ান ঝাউ গাছ, বিভিন্ন প্রজাতির পাতাবাহার গাছ রয়েছে। নিজের হাতে গাছের পরিচর্যা করা, পানি দেওয়া, আগাছা পরিষ্কার করার মজাই আলাদা।’

sobuj bari-4
অনেক জমাজমি থাকলেও সখের বশে এ্যাড. শামসুদ্দিন খবির ছাদবাগান ও বাড়ির দেয়ালে শোভাবর্ধনকারী গাছ লাগিয়েছেন। অনেকে জমা জমি না থাকায় শখ মেটাতে বাড়িতে ছাদ বাগান করেন। যে যেভাবেই করুক না কেন ছাদ বাগান ও শোভা বর্ধনকারী গাছ যেমন করে আমাদের মনের খোরাক জোগায় তেমনিভাবে এটি আমাদের পরিবেশের ভারসাম্য করে, পুষ্টিকর ফলের চাহিদা মেটায়, অক্সিজেন জোগান দেয় এবং বাড়িকে ঠান্ডা রাখতে সহায়তা করে।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: