সাম্প্রতিক পোস্ট

অনুষ্ঠিত হলো বরেন্দ্র বীজ ব্যাংকের ষষ্ঠ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী

রাজশাহী থেকে অমৃত সরকার

বিগত ২০১৫ সালে রাজশাহী জেলার তানোর উপজেলার দুবইল গ্রামে কৃষকদের প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত হয় বরেন্দ্র কৃষক বীজ ব্যাংক। গত ২৬ জানুয়াুর অনুষ্ঠিত হয়ে গেল এ বীজ ব্যাংকের ষষ্ঠ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী। প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে বারসিক ও বরেন্দ্র বীজ ব্যাংকের যৌথ আয়োজনে কৃষক আলোচনা, বীজ বিনিময় ও বিগত বছরের সফল কৃষকদের সন্মাননা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু কৃষি পদক প্রাপ্ত কৃষক নূর মোহম্মদ, দেশীয় ধান চাষে সাফল্য অর্জনকারী কৃষক মুকিদ দুলাল, প্রথম আলোর রাজশাহী প্রতিনিধি আবুল কালাম মোহাম্মদ আজাদ, শুদ্ধ কৃষি বিপনন কেন্দ্রে প্রতিষ্ঠাতা কাকলী খাঁন, বারসিক’র আঞ্চলিক সমন্বয়কারী মো. শহিদুল ইসলামসহ দুই শতাধিক কৃষক-কৃষাণী। পরিবেশ পদকপ্রাপ্ত কৃষক মো.ইউসুফ আলীর সভাপত্বিতে অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনা করেন দুবইল গ্রামের কৃষক মো.জায়েদুল ইসলাম।


অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বরেন্দ্র বীজ ব্যাংকের কার্যক্রমকে সাধুবাদ জানিয়ে বলেন, ‘কৃষকের সহযোগিতার পাশাপাশি এ ব্যাংক দেশের জন্যও খুবই গুরুত্বপূর্ণ কাজ করছে কারণ এ ব্যাংকের মাধ্যমে অনেক বিলুপ্তপ্রায় দেশীয় ধানজাতসহ বিভিন্ন ফসলের জাত সংরক্ষণ এবং বর্ধন হচ্ছে।’


বরেন্দ্র বীজ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি মো.ইউসুফ আলী মোল্লা বিগত এক বছরের বীজ ব্যাংকের সফলতা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, ‘বিগত এক বছরে বরেন্দ্র বীজ ব্যাংক থেকে ১৬৫ জন কৃষককে ৩৫ প্রজাতির আমনের বীজ বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়াও বীজ ব্যাংকের সহযোগিতায় চলতি রবি মৌসুমে ১২৫ বিঘা জমিতে মসুর ও ১২ বিঘা জমিতে কালোজিরা চাষে সহযোগিতা করা হয়েছে।’

বারসিক’র আঞ্চলিক সমন্বয়কারী মো. শহিদুল ইসলাম বরেন্দ্র বীজ ব্যাংকের লক্ষ ও উদ্দেশ্য নিয়ে উপস্থিত অংশগ্রহণকারীদের মাঝে ধারণা প্রদান করেন এবং বারসিক’র কাজ নিয়ে বিভিন্ন আলোচনা করেন।


বরেন্দ্র বীজ ব্যাংকের কার্যক্রমকে আরো গতিশীল এবং অবকাঠামো উন্নয়নের লক্ষ্যে রাজশাহী বিশ^-বিদ্যালয়ের বোটানি বিভাগের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকার চেক তুলে দেওয়া হয় বরেন্দ্র বীজ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা মোঃ ইউসুফ আলী মোল্লার হাতে। পাশাপাশি বিগত বছরে দেশীয় ধান চাষ ও বর্ধনে ভূমিকা রাখার জন্য তানোর উপজেলার কৃষপুর গ্রামের কৃষক মো. রইস উদ্দিন ও গোদাগাড়ি উপজেলার কৃষক মো. মনিরুজ্জামান মনিরের হাতে সন্মাননা স্মারক তুলে দেওয়া হয়।


উল্লেখ্য, রাজশাহীর তানোরের দুবইল অঞ্চলের কৃষক ও বারসিক মিলে ২০১৪ সাল থেকে এলাকা উপযোগি ধানজাত ও রবিশস্যর জাত নির্বাচনের লক্ষ্যে কাজ করতে থাকে। এই কাজের মাধ্যমে গ্রামের অনেক কৃষক জড়িত হতে থাকে। পাশাপাশি বাড়তে থাকে এলাকা উপযোগি বিভিন্ন শস্য ফসলের জাতের সংখ্যা। কৃষকরা নিজেদের জমিতে চাষের জন্য ফসলের জাত নিয়ে আবার ফেরত দিতে থাকে। এভাবে কার্যক্রম চলমান অবস্থায় দুবইল গ্রামের কৃষকরা সিদ্ধান্ত নেন গ্রামে একটি বীজ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করবেন। সেই সিদ্ধান্ত মোতাবেক ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠা পায় ‘বরেন্দ বীজ ব্যাংক।’ একে একে কৃষকদের অতি প্রয়োজনীয় বীজ ব্যাংক ব্যাংক সফলভাবে ৬ বছর অতিক্রম করল। বরেন্দ্র বীজ ব্যাংকের সফলতা আরো ব্যাপকভাবে বিভিন্ন পর্যায়ে উপস্থাপনের লক্ষ্যে নিজ এলাকা এবং দেশের বিভিন্ন এলাকার কৃষকদেও নিয়ে অনুষ্ঠানটি আয়োজিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেন রাজশাহী বিশ^ বিদ্যালয়ের বোটানি বিভাগের চেয়ারম্যান ড. মনজুরুল ইসলাম।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: