সাম্প্রতিক পোস্ট

উপকূলীয় চর বনায়ন: সবুজ বেষ্টনী তৈরি ও সংরক্ষণে জনউদ্যোগ

সাতক্ষীরা, শ্যামনগর থেকে জেসমিন আরা ও বিশ্বজিৎ মন্ডল

বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলীয় অঞ্চল সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়নের একটি গ্রাম কালিনগর। গ্রামটি সুন্দরবনের কোল ঘেঁষে মালঞ্চ নদীর চরে অবস্থিত। একদিকে নদী ও বন অপরদিকে লবণ পানির চিংড়ি ঘের। লবণাক্ততা ও নদী ভাঙন প্রাকৃতিক পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও মানুষের জীবন-জীবিকায় বড় রকমের প্রভাব রেখেছে। প্রাকৃতিক পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও জলবায়ু পরিবর্তনজনিত প্রভাব মোকাবেলায় এ অঞ্চলের মানুষের নিকট গাছের প্রয়োজনীয়তা অধিক। তাই ব্যক্তি উদ্যোগে হোক আবার সামাজিক উদ্যোগে হোক নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে এই এলাকার মানুষেরা বসতভিটাসহ বনায়ন উপযোগী জায়গাগুলোতে বনায়ন তৈরি করছেন। উদ্দেশ্য একটাই; দূর্যোগ মোকাবেলা। বাংলাদেশে সংঘটিত নানাবিধ দুর্যোগের মধ্যে উপকূলীয় এলাকার নদীভাঙন একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্র্ণ সমস্যা। নদী ভাঙন রোধে স্থানভেদে স্থানীয় জনগোষ্ঠী নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করেন। এর মধ্যে চর বনায়ন অন্যতম। নদীর চর বনায়নের মধ্য দিয়ে একদিকে যেমন নদী ও ভেড়ীবাঁধ ভাঙন রক্ষা পাবে আবার বনায়ন সৃষ্টির ফলে পরিবেশ-প্রতিবেশ সুরক্ষা পাবে, পরিবর্তিত হবে বৈচিত্র্য ও জীবন। সিডর, আইলা ও জলোচ্ছ্বাসসহ নানান প্রাকৃতিক দূর্যোগ থেকে রক্ষা, জ্বালানি সংকট নিরসন ও পরিবেশ/প্রতিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় স্থানীয় জনগোষ্ঠী এই নদীর চরে বনায়ন গড়ে তুলেন। স্থানীয়ভাবে বনায়ন তৈরি ও সুরক্ষায় স্থানীয় জনগোষ্ঠী গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। দূর্যোগ মোকাবেলায় উপকূলীয় অঞ্চলে বনায়ন গড়ে তোলা যেমন জরুরি তেমন তা রক্ষা করাও গুরুত্বপূর্ণ।

Forestation
বনায়নের পূর্বের ছবি

নদী ভাঙন, নদীর চর রক্ষা এবং জ্বালানি সংকট দূর করার লক্ষ্যে কালিনগর গ্রামের যুব ও অন্যান্য পেশার মানুষেরা যৌথভাবে নদীর চর বানায়নের উদ্যোগ গ্রহণ করে। ২০১৩ সালে স্থানীয় জনগোষ্ঠী মালঞ্চ নদীর চরে বনায়ন কাজ শুরু করেন। চর বনায়নের ক্ষেত্রে প্রথম প্রয়োজন হয় বনায়নের স্থান সুরক্ষায় ঘেরা বেড়া প্রদান। তা না হলে গবাদিপশু বনায়নকৃত এলাকায় গজানো চারা খেয়ে ফেলবে। স্থানীয় জনগোষ্ঠী সবুজ বেস্টনী তৈরির প্রক্রিয়া হিসেবে প্রথমে তাই বনায়নকৃত স্থানে ঘেরা প্রদান করেন। স্থানীয় জনগোষ্ঠীর সমন্বিত উদ্যোগকে গতিশীল করার জন্য বারসিক সহযোগিতার হাত বাড়ায়। নদীর চরে বনায়নের জন্য স্থানীয়রা আলোচনার মাধ্যমে চরের সীমানা নির্ধারণ করে কালিনগর গ্রামের রবীন্দ্রনাথ মন্ডলের বাড়ি থেকে অধীর মন্ডলের বাড়ি পর্যন্ত প্রায় আধা কিঃ মিঃ জায়গায় বনায়নের সিদ্ধান্ত নেন। বনায়ন মৌসুমে নির্ধারিত জায়গায় নেট ও গরানের খাদি (গরানের কচা) দিয়ে স্থানীয় জনগোষ্ঠী স্বেচ্ছাশ্রমে প্রথমে ঘিরে রেখে দেন। ঘিরে দেওয়ার সপ্তাহ দু’এক এর মধ্যে ঘাসের সাথে চরে ধানী (এক জাতীয় ঘাস) জন্মাতে শুরু করে। জোয়ারের পানিতে ভেসে আসা সুন্দরবনের বিচিত্র রকম গাছের বিচিত্র ফল ধানীর মধ্যে বসতে থাকে। এরপর আরো কয়েকদিন অতিবাহিত হওয়ার পর আটকে থাকা বৈচিত্রময় ফল থেকে চারা জন্মাতে শুরু করে। ঘিরে দেওয়ার পূর্বে উন্মুক্ত থাকার কারণে চরের দু এক জায়গায় একটু আধটু ঘাস ও দু একটা গেওয়া ছাড়া অন্য কোন গাছ বা প্রাণের বৈচিত্র্য লক্ষণীয় ছিল না। ধীরে ধীরে সুন্দরবন থেকে ভেসে আসা বিচিত্র ফল থেকে বিভিন্ন প্রজাতির চারা (কেওড়া, কাকড়া, বাইন, গেওয়া, গোল) গজিয়ে ধীরে ধীরে বন তৈরি হয়।

Forestation.jpg-1                                                                              বনায়নের পরের ছবি

কিন্তু নদীর চর হওয়ায় সময়ের ব্যবধানে ছাগল/কুকুরের আক্রমণের কারণে বনায়নকৃত জায়গার বেড়া কিছু কিছু জায়গায় নষ্ট হয়ে যায়। বনায়ন সংরক্ষণে তাই প্রয়োজন হয় পুনরায় বেড়া সংস্কার। স্থানীয় জনগোষ্ঠী স্বেচ্ছাশ্রমে পুনরায় বেড়া সংস্কারে উদ্যোগী হয়ে ওঠেন। প্রয়োজনীয় উপকরণ সহযোগিতার মাধ্যমে বারসিক তাদের এই উদ্যোগকে বেগবান করে তুলতে বেড়া পূনঃসংস্কারে অবদান রাখে। এছাড়া স্থানীয়রা আলোচনা সাপেক্ষে নির্ধারণ করেন বনায়নের বেড়া রক্ষায় যার যার বাড়ির সামনের অংশ তারা দেখাশোনার দায়িত্ব নেন। স্থানীয় জনগোষ্ঠীর তদারকি ও তত্ত্বাবধানে ধীরে ধীরে বনায়ন এলাকায় সবুজায়ন হতে থাকে।

ক্ষুদ্র আকারে হলেও নদীর চরে গড়ে ওঠা বনায়নটি স্থানীয় মানুষের ভাঙন রক্ষা, জ্বালানি চাহিদা পূরণ ও বৈচিত্র্য তৈরিতে একটি পর্যায়ে অবদান রাখতে সক্ষম হবে। এছাড়াও স্থানীয় জনগোষ্ঠী মনে করেন জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব হ্রাস ও অভিযোজন, বৈচিত্র্য সংরক্ষণের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলায় উপকূল অঞ্চলজুড়ে ব্যাপক হারে বনায়ন করা দরকার। কারণ উপকূলীয় এলাকায় সকল ধরনের দূর্যোগ থেকে রক্ষা পেতে ও জীবন ব্যবস্থা রক্ষায় বনায়ন কার্যক্রমের কোন বিকল্প নেই।

happy wheels 2
%d bloggers like this: