সাম্প্রতিক পোস্ট

মানিকগঞ্জে কৃষাণ-কৃষাণীদের ২১ শে ফেব্রুয়ারি উদ্যাপন

সিংগাইর, মানিকগঞ্জ থেকে বিউটি সরকার
এবার কৃষকদের কণ্ঠে ধ্বনিত হলো ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি ভুলিতে পারি।’ নিজেদের হাতে তৈরি শহীদ মিনারের সামনে এ গানটি গাওয়ার মধ্য দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন সিংগাইর উপজেলার বায়রা কৃষক কৃষাণি সংগঠনের সদস্যসহ গ্রামের শিশু, তরুণ, নবীন ও প্রবীণগণ।


সংগঠনের সভাপতি রোকেয়া বেগমের নেতৃত্বে ২০১৭ সাল থেকে বায়রা গ্রামে পালিত হয়ে আসছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। এ প্রসঙ্গে রোকেয়া বেগম বলেন, ‘আমরা যে মায়ের ভাষায় কথা কই (বলি) তা এ দিনের মধ্য দিয়েই পাইছি। এইডা আমরা জানতাম না। বারসিক আমগো শিখাইছে। অহন আর বারসিকে কউন লাগবো না। আমরা সববছরই এই দিনডা পালন করুম।’ কৃষাণী সাফিয়া বেগম বলেন, ‘আমরা আগের দিন শহীদ মিনার বানানোর জন্য কলাগাছ তুলে আনি এবং আমদের গ্রামের ছেলেমেয়েরা ও কৃষক কৃষানিরা মিলে শহীদ মিনার তৈরি করি। আমরা আমাগো মতন করে মায়ের ভাষাকে শ্রদ্ধা জানাই। এইডাই আমাগো কাছে ভালো লাগে।’


প্রতি বছর ২১ ফেব্রুয়ারিতে গ্রামের ছোট বড় সকলে একত্রিত হয়ে কলাগাছ দিয়ে শহিদ মিনার তৈরি করেন এবং শহীদ দিবসের দিন কৃষক-কৃষাণীরা প্রথমে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শহীদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলী জ্ঞাপন করেন।


প্রতিবছরই দিবসটির গুরুত্ব নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠান হয়। এবারেও আলোচনা অনুষ্ঠান করা হয়েছে। আলোচনা অনুষ্ঠানে ভাষা শহীদদের অবদান তুলে ধরেন বারসিক কর্মকর্তা শিমুল বিশ^াস। এরপর ভাষা শহীদদের স্মরণে শিশু

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: