সাম্প্রতিক পোস্ট

আমাদের সামাজিক স্কুল

আমাদের সামাজিক স্কুল

রাজশাহী থেকে জিনাত-উন-নেসা

২০১৬ সালের স্বাক্ষরতা দিবসের দিনে সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের আয়োজিত সেমিনারে কলেজের অধ্যক্ষ সকল শিক্ষর্থীদেরর সামনে তুলে ধরেন সমাজের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের নিয়ে শিক্ষাচিত্র। এ সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের শিক্ষা নিয়ে কিছু করা যায় কিনা তা প্রশ্ন করেন। রাজশাহী কলেজের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের সকল শিক্ষার্থী অধ্যক্ষকে জানান যে, তারা সকলে মিলে সামাজিক স্কুল খোলার স্বপ্ন দেখেন এবং এখন তা সত্যি বাস্তবে পরিণত হয়েছে।

Shahidul- (2)

“জ্ঞানই শক্তি, শিক্ষাই মুক্তি” এই স্লোগানে শুরু হয় রাজশাহী কলেজের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত সমাজের সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের জন্য সামাজিক স্কুল। এ সামাজিক স্কুল প্রতিষ্ঠিত হয় ২০১৬ সালের ২৫ অক্টোবরে। একঝাক তরুণ দ্বারা পরিচালিত হয় এই সামাজিক স্কুল। এই সামাজিক স্কুলটি গড়ে ওঠে নামোভদ্রা নামের একটি পাড়ায়। বর্তমানে সামাজিক স্কুলের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৬০ জন এবং শিক্ষক সংখ্যা ৫০ জন।

Shahidul-BARCIK (1)
সামাজিক স্কুলটি পরিচালিত হয় শিক্ষকদের মাসিক ২০ টাকা চাঁদার ভিত্তিতে। সামাজিক স্কুল শিশু শ্রেণী থেকে ষ্ষ্ঠ শ্রেনী পযর্ন্ত লেখাপড়া শেখানো হয়। শিক্ষা ছাড়া এ স্কুেলর শিক্ষার্থীদের নিয়ে নানান প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হয়: যেমন গান, রচনা, চিত্রাংকন, কবিতা ও আবৃত্তি। শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করার জন্য স্কুলে বিকালের নাস্তার ব্যবস্থা করা হয়। মাসের প্রতি সপ্তাহের শনি, সোম ও বুধবার এই তিনদিন সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীরা স্বেচ্ছায় ক্লাশ নিয়ে থাকেন।

শহিদুল-বারসিক
ক্লাসের ফাঁকে ফাঁকে শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিনোদনের ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে। সামাজিক স্কুলে ক্লাশ শুরু হয় বিকাল ৩টায় এবং শেষ হয় ৬টা। এ স্কুলে বাংলা, ইংরেজি, গণিত ও অন্যানো বিষয়গুলো পড়ানো হয় । রাজশাহী কলেজের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ এ স্কুলের যাবতীয়য় খরচ বহন করে।

সামাজিক স্কুল থেকে ষষ্ঠ শ্রেণী পাশ করার পরেও অন্যান্য স্কুলে ভর্তি করার ক্ষেত্রে যাবতীয় খরচ বহন করে এই সমাজ বিজ্ঞান বিভাগ। এ বিভাগের শিক্ষার্থীদের অক্লান্ত পরিশ্রম করার ফলে এ সামাজিক স্কুল দু’বছর পর্দাপন করলো সম্প্রতি।

BARCIK-Raj
এ স্কুলের বর্তমান সভাপতি মো. রাকিবুল ইসলাম, সহ-সভাপতি শাকিল আহমেদ এবং সাংগঠনিক সম্পাদক লাবনী আকতার। এছাড়াও আরও অনেকেই স্বেচ্ছাশ্রমে এ স্কুলের শিক্ষাদান করেন।

এ সামাজিক স্কুল তার লক্ষ্যে এগিয়ে যাক। সকল অন্ধকার দূর করে নতুন সূর্যের আলোয় আলোকিত হোক আমাদের সামাজিক স্কুলের শিক্ষার্থীরা।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: