সাম্প্রতিক পোস্ট

কাউখালীর নার্সারি হাট

দেবদাস মজুমদার,বিশেষ প্রতিনিধি,উপকূল অঞ্চল :

ফলদ ও বনজ গাছের চারা রোপণের এখন উপযুক্ত মৌসুম। ফলদ ও বনজ চারা সংগ্রহের এ মৌসুমে চারা কেনা বেচার হাট বেশ জমে উঠেছে। উপকূলে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে উৎপাদিত হয় এসব চারা। দক্ষিণাঞ্চলের নার্সারিতে উৎপাদিত গাছের চারা বিক্রির বৃহত্তম হাট বসে পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলা সদরে। জেলার স্বরূপকাঠী, নাজিরপুর, ভা-ারিয়া, মঠবাড়িয়া, এবং পার্শ্ববর্তী উপজেলা বরিশালের বানারীপাড়ার বিভিন্ন নার্সারিতে উৎপাদিত চারা বাজারজাত হয় কাউখালীর হাটে।

স্থানীয়দের সূত্রে জানা গেছে, এ মৌসুমে সপ্তাহের দুই দিন শুক্র ও সোমবার এ হাটে বিভিন্ন  প্রজাতির বনজ ও ফলদ চারা কেনা বেচা হয়। এ এলাকার নার্সারিতে উৎপাদিত রেইনট্রি, মেহগনি, চাম্বল, গামার, জামরুল, আকাশমনি, সেগুন, লম্বনসহ ৩৫ থেকে ৪০টি প্রজাতির বনজ চারা বিক্রি হয় এ হাটে। এছাড়া আমড়া, আমলকি, জলপাই, বড়ই, কাঠাল, নারিকেল, সুপারি, আম, জাম, পেয়ারা, ছবেদা, লিচুসহ ২০ থেকে ২৫ প্রজাতির ফলদ চারাও বিক্রয় করা হয় এখানে। কাউখালীতে গড়ে উঠেছে চারা কেনা বেচার বাজার।

এখানে বছরের বৈশাখ থেকে কার্তিক মাস পর্যন্ত চারা কেনা-বেচা হয়। তবে আষাঢ় থেকে আশ্বিন পর্যন্ত এ চার মাস সবচেয়ে বেশি বেচা-কেনা হয়। এ এলাকার নার্সারিতে উৎপাদিত চারা টেকসই বিধায় সুপরিচিত। তাই ঢাকা, খুলনাসহ দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে পাইকাররা এসে এখান থেকে গাছের চারা কিনে নিয়ে যায়। এ হাটে মৌসুমে কোটি কোটি টাকার চারা বিক্রি হয়। কাউখালীর সন্ধ্যা ও চিরাপাড়া নদীর কোল ঘেঁষে কাউখালী বন্দরের এ হাটে ব্রিটিশ আমল থেকে এখানে এ বাজার বসছে। নার্সারিতে উৎপাদিত চারা বিক্রির হাট কাউখালীর একটি প্রসিদ্ধ হাট।

বৃক্ষ রোপণে মানুষের উৎসাহ বৃদ্ধি এবং সরকারের সবুজ বেষ্টনী প্রকল্পের কারণে এ অঞ্চলে গড়ে উঠে প্রচুর নার্সারি। আর দিনে দিনে পরিবহন সুবিধা বাড়তে থাকায় ধীরে ধীরে চারা গাছের বাজার জাতকরণও বাড়তে থাকে। ফলে এখানে গড়ে ওঠে নার্সারীতে উৎপাদিত চারা গাছের বিশাল হাট। এ হাটে খুলনা থেকে নার্সারির চারা কিনতে আসা মো. শাজাহান মিয়া জানান, তিনি এ মোকাম থেকে প্রতি মৌসুমে বিভিন্ন প্রজাতির লক্ষাধিক টাকার চারা কিনে নিয়ে যান। কাউখালীর নার্সারি ব্যবসায়ী মো. ছগির হোসেন খান জানান, তিনি এক বিঘা জমিতে বিভিন্ন প্রজাতির চারা উৎপাদন করে বছরের একটি মৌসুমে ৩-৪ লাখ টাকা আয় করেন। এ অঞ্চলের নার্সারি ব্যবসায়ীরা মনে করেন সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা থাকলে দক্ষিণাঞ্চল গড়ে উঠতে পারে নার্সারিতে চারা উৎপাদনে দেশের বৃহত্তম ও প্রধান কেন্দ্র।

এ ব্যাপারে কাউখালী উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা অপূর্ব লাল সরকার বলেন, “বিভিন্ন প্রজাতির চারা কাউখালীর এ হাটে সহজলভ্য বলে উপকূলীয় অঞ্চলের বেশিরভাগ নার্সারির চারা প্রতি মৌসুমে এ হাট থেকে সংগৃহীত হয়। ফলে এখানে গড়ে উঠেছে ফলদ ও বনজ চারার কেনা বেচার বাণিজ্যিক বাজার।

happy wheels 2
%d bloggers like this: