সাম্প্রতিক পোস্ট

দ্বীপবেষ্টিত গাবুরাতে আব্দুল হামিদের কৃষি প্রচেষ্টা

সাতক্ষীরা থেকে মননজয় মন্ডল

পরিবেশবান্ধব দূর্যোগ সহনশীল কৃষি প্রচেষ্টা করে চলেছেন কৃষক আব্দুল হামিদ। বছরব্যাপী বৈচিত্র্যময় ফসল চাষাবাদের পাশাপাশি নিজের বসতভিটায় নানা প্রজাতির উদ্ভিদ ও বৃক্ষ লাগিয়ে তার বাড়িটিকে গড়ে তুলেছেন এলাকার মধ্যে একটি বৈচিত্র্যময় সমৃদ্ধ কৃষি খামার। সমন্বিত কৃষি ব্যবস্থার মাধ্যমে একটি মডেল কৃষি বাড়ি তৈরি করার এলাকায় ব্যাপক পরিচিতি ও সুনাম কুড়িয়েছেন।

দ্বীপবেষ্টিত গাবুরাতে কৃষক হামিদের কৃষি প্রচেষ্টা (1)

কৃষক আব্দুল হামিদ মূলত জৈব পদ্ধতিতে কৃষি কার্যক্রম পরিচালনা করেন। পরিবেশবান্ধব উপায়ে জৈব সার তৈরি ও ব্যবহার এবং ফসল ব্যবস্থাপনণায় জৈব কীটনাশক ব্যবহার করেন বলেই এলাকায় তার উৎপাদিত ফসলের চাহিদা অনেক বেশি। এ প্রসঙ্গে কৃষক আব্দুল হামিদ বলেন, ‘আমি ছোটবেলা থেকেই বাবার হাত ধরেই কৃষি কাজ করি। কিন্তু যখন ধূমঘাটের কৃষাণী অল্পনা রানীর কৃষি বাড়িতে এক অভিজ্ঞতা বিনিময়ে উপস্থিত হলাম, তার কৃষি প্রচেষ্টা ও সমন্বিত কৃষি খামারটি দেখে আমার খুব ভালো লেগে যায়। এত সুন্দর করে তার বসতবাড়িটি সবুজে ঢেকে রেখেছেন। আমি দেখে মুগ্ধ হয়ে অনুপ্রাণিত হয়ে আমার বাড়িটিকে নিজের মত করে মডেল কৃষি বাড়ি তৈরি করার প্রচেষ্টা করে যাচ্ছি। আমার এ কাজে বারসিক ও অল্পনাদি অনেক সহযোগিতা করেছেন।’

দ্বীপবেষ্টিত গাবুরাতে কৃষক হামিদের কৃষি প্রচেষ্টা (4)

আব্দুল হামিদ বছরব্যাপী বৈচিত্র্যময় সবজি ও ফষল হিসেবে লালশাক, পালংশাক, চালকুমড়া, লাউ, কচুরমুখি, পুইশাক, আলু, টমেটো, বেগুন, মিষ্টিকুমড়া, বরবটি, ডাটাশাক, ওলকপি, ফুলকপি, বাধাকপি, মুলা, উচ্ছে, শিম, শসা, ঝাল, পেঁয়াজ, রসুন, হলুদ ও সরিয়া ইত্যাদি চাষাবাদ করেন। তার বসতভিটায় আম, কলা, নারকেল, পেয়ারা, আমড়া, সবেদা, জামরুল, বাতাবি লেবু, তাল, খেজুর, কেওড়া, নিম, কদবেল, পাতিলেবু, আপেল, কুল তেঁতুল, ডালিম, বেদানা, কাঁঠাল, পেঁপেসহ রয়েছে নানা প্রজাতির বৃক্ষ সম্ভার। তিনি ঔষধি উদ্ভিদ হিসেবে অনন্তমূল, অপরাজিতা, লালকেউটে, কালকেউটে, কৃষ্ণ তুলসী, রাধা তুলসী, মাধবীলতা, বাউফুল, কানফুল, চিরবসন্ত, পাথরকুচি, দূর্বাঘাস, মেহেদী ও অচাষকৃত উদ্ভিদ বৈচিত্র্য হিসেবে আদাবরুন/বিলশাক, তেলাকচু, ঘুমশাক, কলমীশাক, গাদামনি শাক, হেলাঞ্চ, মাটিফোড়া শাক, খুদকুড়ো, সেঞ্চি শাক, ঘোড়া সেঞ্চি, থানকুনি, কালকচু প্রদর্শনী প্লট করে সংরক্ষণ করেছেন।

একই সাথে পরিবারের পুষ্টি চাহিদা পূরন এবং আর্থিক উপার্জনের জন্য তিনি বিভিন্ন প্রাণীসম্পদ ছাগল, হাঁস-মুরগি পালন করেন। এাছাড়াও, নিজের বসতভিটায় একটি স্বাদু পানি ও অপরটি লবন পানির পুকুর খনন করে স্থানীয় মৎস্যবৈচিত্র্য সংরক্ষণ করেন।

দ্বীপবেষ্টিত গাবুরাতে কৃষক হামিদের কৃষি প্রচেষ্টা (3)

চকবারা যুব কল্যাণ আইএফএম কৃষক সংগঠনের সভাপতি সিদ্দিকুল ইসলাম বলেন,‘আমাদের গাবুরা ইউনিয়নের খলিশাবুনিয়া গ্রামের কৃষক আব্দুল হামিদ কৃষিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। প্রাণবৈচিত্র্যসমৃদ্ধ মডেল কৃষি খামার গড়ে তুলতে আমরা সবাই তাঁকে সহযোগিতা করেছি।’

কৃষিঐতিহ্য, অস্তিত্ব, সংস্কৃতি এবং স্থায়িত্বশীল জীবনযাত্রার দিক নির্দেশনার অকৃষক আব্দুল হামিদ একটি গুরুত্বপূর্ণ মডেল। সরকারি/ বেসরকারী সমন্বিত উদ্যোগে প্রাণবৈচিত্র্যসমৃদ্ধ আব্দুল হামিদের এই জ্ঞান-দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি উপকূলীয় প্রাণবৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও পারিবারিক খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অবদান রাখবে।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: