সাম্প্রতিক পোস্ট

বাংলাদেশের রাজশাহীতে প্রথম পালিত হলো আন্তর্জাতিক সাইক্লিং দিবস

রাজশাহী থেকে মো. শহিদুল ইসলাম

জীবন, পরিবেশ ও স্বাস্থ্য সুরক্ষাসহ গ্রীন সিটি, ক্লিন সিটির প্রত্যাশা ও সাইক্লিং জনপ্রিয়তার জন্য বাংলাদেশে প্রথম রাজশাহীতে অনুষ্ঠিত হলো আন্তর্জাতিক সাইক্লিং দিবস ২০১৯। “Cycling for Green Cities & Green Personality”(সবুজ শহর ও সবুজ ব্যক্তিত্বের জন্য সাইক্লিং) প্রতিপাদ্য বিষয়েকে সামনে রেখে আজ (১৮ সেপ্টেম্বর) রাজশাহীর শহীদ জিয়া শিশু পার্কে সাইকেল র‌্যালি ও শোভাযাত্রা শুরু হয়।

BARCIK Cycling Day PIC_2

উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান বারসিক ও রাজশাহী তরুণ সাইক্লিং গ্রুপ ০.৬ জিআরজেড যৌথভাবে এই আয়োজন করে। সকালে রাজশাহীর শহীদ জিয়া শিশু পার্ক থেকে শতাধিক তরুণ সাইকেল র‌্যালি নিয়ে রাজশাহী সিটির প্রধান প্রধান রাস্তাগুলোতে সাইকেল প্রদক্ষিণ করেন। সাইকেল র‌্যালির মধ্যে দিয়ে তরুণরা মাদকমুক্ত সমাজ, পরিবেশবান্ধব নগর এবং সাইকেল চালানো সবুজ ব্যক্তিত্বের প্রতীক বিষয়গুলো শ্লোগান দিয়ে সাইক্লিং করেন।

BARCIK Cycling Day PIC-1

র‌্যালি শেষে তরুণরা রাজশাহীর মন্নুজান প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আলোচনা অনুষ্ঠান করেন। এতে তরুণরা বলেন, ‘রাজশাহী গ্রীণ সিটি ক্লিন সিটি হিসেবে গড়ে তুলতে হলে অবশ্যই নগরীর ভেতরে মানুষদেরকে সাইকেল চালানোর অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে।’ তারা দাবি করেন, নগরীতে সকল রাস্তায় সাইকেল লেন করতে হবে।

আলোচনা অনুষ্ঠানে বারসিক’র আঞ্চলিক সমন্বয়কারী শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে পরিবেশ ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো আমাদের দেশের শহরগুলোর টেকসই উন্নয়নের দিকে গভীর মনোযোগ দেয়া উচিত। জ্বালানী নির্ভরতা কমিয়ে জ্বালানিবিহীন বাহনগুলোর দিকে বেশি গুরুত্ব দেয়া উচিত। শহরের যানজটসহ বায়ুদূষণ কমানোর জন্য বাইসাইকেল চালানোর প্রতি সকলের জোর দেয়া উচিত। কারণ এতে নিজের শরীর ও স্বাস্থ্য ভালো থাকে। একই সাথে পরিবেশকে সুন্দর রাখে।’ তিনি আরও বলেন, ‘জ্বালানি নির্ভরতা কমায়, অর্থ সাশ্রয় হয়। সাইকেল চালানো একটি শিল্পও বটে। যে শিল্পের ব্যবহারে নিজেকে এবং বিশ্বকে সুন্দর রাখে। গ্রীণ সিটি, ক্লিন সিটি তৈরীতে বিশেষ অবাদান রাখে। তরুণদের মধ্যে এই শিল্প দিনে আরো জনপ্রিয়তা পাচ্ছে।’

BARCIK Cycling Day PIC-3

আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন সাইক্লিং গ্রুপ ০.৬ জিআরজেড এর সভাপতি জুবায়ের হোসেন, সহ সভাপতি আদিব হাসনাইন, বরেন্দ্র শিক্ষা সংস্কৃতি বৈচিত্র্য রক্ষা কেন্দ্রর সভাপতি জাওয়াদ আহমেদ রাফি।

BARCIK Cycling Day PIC-4

উল্লেখ্য যে, সাইকেল চালানোর প্রতি তরুণসহ সকল শ্রেণী পেশার মানুষের আগ্রহ বাড়াতে জাতিসংঘ ১২ এপ্রিল ২০১৮ সালে সাধারণ সভায় ৩ জুনকে বিশ্ব বাইসাইকেল দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। কিন্তু যারা সাইক্লিস্ট, তাঁরা বহুদিন থেকে আন্তর্জাতিক সাইক্লিং দিবসের দাবি জানিয়ে আসছেন। ঢাকা সাইক্লিং ক্লাব বিগত ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৫ সালে আন্তর্জাতিক সাইক্লিং দিবসের দাবি করেন। চীন দেশের তরুণ সাইক্লিস্টগণ ২০১৭ সাল থেকে আন্তর্জাতিক সাইক্লিং দিবস পালন করেন। সেসময় তাদের প্রতিপাদ্য বিষয় ছিলো- “Cycling Changes Cities”। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সাইক্লিং দিবসের আয়োজন করা হচ্ছে। সাইক্লিং দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় সেই দেশ বা এলাকার প্রেক্ষিতে নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। সেই ধারাবাহিকতায় রাজশাহী সাইক্লিং গ্রুপ ০.৬ জিআরজেড ২০১৫ সাল থেকে রাজশাহী শহরসহ দেশব্যাপী সাইকেল চালানোকে প্রাধান্য দিয়ে পরিবেশ সুরক্ষায় কাজ করছে। যাতে বেসরকারি উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান বারসিক সহযোগীর ভূমিকা পালন করছে। বর্তমান রাজশাহীতে শত শত তরুণ তরুণীদের মধ্যে সাইক্লিং বিশেষভাবে জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। এখানে সাইক্লিস্টগণ সাইরকল চালানোর মধ্যে দিয়ে পরিবেশ সুরক্ষাসহ, মাদক বিরোধী, জ্বালানী সাশ্রয়ীসহ বিভিন্ন ক্যাম্পেইন করে থাকেন। বাংলাদশেই প্রথম বারসিক এবং তরুণ সাইক্লিং দল ০.৬ জিআরজেড আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিপাদ্য বিষয় সমেত আন্তর্জাতিক সাইক্লিং দিবসের আয়োজন করলো।

happy wheels 2

Comments

%d bloggers like this: